মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

রাঙ্গামাটির লংগদুতে টেন্ডার নিয়ে ঠিকাদার-ছাত্রলীগ হাতাহাতি

প্রকাশের সময়: ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ - শনিবার | জানুয়ারি ১৪, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকমডটবিডি:

চৌধুরী হারুনুর রশীদ,রাঙ্গামাটিঃ রাঙ্গামাটির লংগদুতে ঠিকাদার এবং ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ সময় মো. ইউনুছ নামে এক ঠিকাদার আহত হন বলে জানা যায়। বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে ঘটনাটি ঘটে। শুক্রবার বিকালে জেলা সদরে এসে এ কথা জানান, টেন্ডারে অংশ নেয়া ঠিকাদাররা।
ঠিকাদাররা অভিযোগ করে জানান, লংগদু উপজেলায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের অধীন ছোট ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্পের টেন্ডার আহবান করে উপজেলা পরিষদ। টেন্ডারে অংশ নেয়া ঠিকাদারদের মধ্যে কাজ বন্টনের জন্য লটারির আয়োজন করা হয় বৃহস্পতিবার দুপুরে। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এক পর্যায়ে হঠাৎ উপজেলা ছাত্রলীগের একদল কর্মী লটারি স্থল ঢুকে পড়ে তাদেরকে তিনটি কাজ দেয়ার দাবি করে। কিন্তু এতে ঠিকাদাররা অসম্মত হন। অপরপক্ষে নানা হুমকি ধামকি দিয়ে টেন্ডার নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা চালায় ছাত্রলীগ কর্মীরা। এ সময় তারা লটারি পরিচালনাকারী সরকারি কর্মকর্তা এবং ঠিকাদারদের ওপর মারমুখি হয়ে চড়াও হয়। এক পর্যায়ে সাধারণ ঠিকাদারদের ওপর ছাত্রলীগ কর্মীরা হামলার চেষ্টা করলে উভয়ের মধ্যে হাতাতির ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে লংগদু থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
বিষয়টি জানতে ফোনে যোগাযোগ করা হলে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে লংগদু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুমিনুল ইসলাম বলেন, মূলত টেন্ডার নিয়ে বাক-বিতন্ডার সময় মোবাইলে ছবি ও ভিডিও ধারণ করাকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে কিছুটা হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।  তবে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি তাৎক্ষণিক প্রশমিত হয়।
মো. ইউনুছসহ সাধারণ ঠিকাদাররা অভিযোগ করে বলেন, ৪ জানুয়ারি উপজেলায় অনুষ্ঠিত ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর ব্যয় মেটানোর নাম করে হঠাৎ লটারি স্থলে প্রবেশ করে তাদেরকে বড় বড় তিনটি কাজ দিতে হবে বলে দাবি করে ছাত্রলীগের কর্মীরা। ওই সময়  উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিয়াউল হক জিয়াও উপস্থিত ছিলেন। তাদের প্রস্তাবে উপস্থিত ঠিকাদাররা রাজি না হওয়ায় ঠিকাদারদের ওপর চড়াও হয়ে হামলা চালায় ছাত্রলীগ কর্মীরা। তবে উপজেলা প্রশাসনের চেষ্টায় শেষ পর্যন্ত লটারি কার্যক্রম সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়। ঠিকাদাররা ছাত্রলীগের এ টেন্ডারবাজির ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
এদিকে যোগাযোগ দুর্গমতার কারণে লংগদু উপজেলা ছাত্রলীগের কারও সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি

উপরে