শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

সাত খুন: ফাঁসির ১২ আসামি না.গঞ্জ কারাগারে

প্রকাশের সময়: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ - বুধবার | জানুয়ারি ১৮, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকমডটবিডি: নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুন মামলায় আটক আসামিদের মধ্যে ফাঁসির দণ্ড পাওয়া ১২ জনসহ ১৮ আসামি নারায়ণগঞ্জ কারাগারে আছেন। মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ পাঁচজন আছেন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে।

চাঞ্চল্যকর সাত খুনের এই মামলায় সোমবার নারায়ণগঞ্জের আদালত ৩৫ আসামির মধ্যে ২৬ জনের ফাঁসি ও নয়জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডের রায় দেন। তাদের মধ্যে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন ২৩ আসামি। মামলা চলাকালে তারা সবাই নারায়ণগঞ্জ কারাগারে ছিলেন। অন্য ১২ জন পলাতক।

নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগার সূত্র জানা গেছে, সোমবার দণ্ড পাওয়া সব আসামিকে কারাগারে নেয়ার পর সেখান থেকে পাঁচজনকে কাশিমপুরে পাঠানো হয়। নারায়ণগঞ্জে থাকা আসামিদের পরানো হয় কয়েদির পোশাক। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া ১২ জনের জায়গা হয় ফাঁসির সেলে।

কাশিমপুরে নেয়া আসামিরা হলেন মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত প্রধান আসামী নূর হোসেন, র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা লে. কর্নেল (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, মেজর (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) আরিফ হোসেন, লে. কমান্ডার (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) এম এম রানা ও পুলিশের ল্যান্স নায়েক বেলাল হোসেন।

নারায়ণগঞ্জ কারাগারে রয়েছেন ১৮ আসামির মধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এসআই পুর্ণেন্দু বালা, হাবিলদার এমদাদুল হক, কনস্টেবল শিহাব উদ্দিন, আরওজি-১ আরিফ হোসেন, ল্যান্স নায়েক হীরা মিয়া, সিপাহি আবু তৈয়ব, আসাদুজ্জামান নূর, নূর হোসেনের সহযোগী মোর্তুজা জামান চার্চিল, আলী মোহাম্মদ, মিজানুর রহমান দীপু, রহম আলী ও আবুল বাশার।

এ ছাড়া ১০ বছর সাজাপ্রাপ্ত চার আসামি কনস্টেবল বাবুল হাসান, ল্যান্স কর্পোরাল রুহুল আমিন, সৈনিক নুরুজ্জামান, আবুল কালাম আজাদ এবং সাত বছর সাজাপ্রাপ্ত দুই আসামি এএসআই বজলুর রহমান ও হাবিলদার নাসির উদ্দিন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারের দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলার মো. আসাদুর রহমান এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জ কারাগারে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া ১২ আসামিসহ ১৮ জন রয়েছে। আর মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত নুর হোসেন, তারেক সাঈদ, আরিফ হোসেন, এম এম রানা ও ল্যান্স নায়েক বেলাল হোসেনকে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলার জানান, নারায়ণগঞ্জ কারাগারে ফাঁসির আসামিদের জন্য ১৫টি সেল রয়েছে। সাত খুন মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া ১২ আসামিকে ওই সব সেলের কয়েকটিতে রাখা হয়েছে। প্রতি সেলে তিনজন করে।  তাদের কয়েদির পোশাক পরানো হয়েছে। নারায়গঞ্জ কারাগারে থাকা আরো ১২ ফাঁসির আসামির মতোই তাদের রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

জেলার আরো জানান, আসামিদের সোমবার রাতে সবজি ও ডাল, ভাত ও মাছ খেতে দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে রুটি, গুড় দেয়া হয়। তারা সবাই তা খেয়েছেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জনসহ পলাতক ১২ আসামি

পলাতক আছেন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত নয়জনসহ ১২ আসামি। তারা হলেন- নূর হোসেনের সহযোগী বর্তমানে ভারতের কারাগারে আটক সেলিম, সানা উল্লাহ ওরফে সানা, নূর হোসেনের ম্যানেজার শাহ্জাহান, জামাল উদ্দিন, সার্জেন্ট এনামুল কবীর, সৈনিক মহিউদ্দিন মুন্সী, সৈনিক আল আমিন শরীফ, সৈনিক তাজুল ইসলাম ও সৈনিক আব্দুল আলিম। ১০ বছর সাজাপ্রাপ্ত তিন আসামি হলেন- কর্পোরাল মোখলেছুর রহমান, কনস্টেবল হাবিবুর রহমান ও এএসআই কামাল হোসেন।

উপরে