শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

কোরানের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে জঙ্গিরা মানুষ হত্যা করেছে: আদালত

প্রকাশের সময়: ১০:১১ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকমডটবিডি: ‘পবিত্র কোরানের ভুল ও মনগড়া ব্যাখ্যা দিয়ে জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) জঙ্গিরা ইসলাম কায়েমের নামে মানুষ হত্যা করেছে।’ মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রংপুরে জাপানি নাগরিক ওসি কুনিও হত্যা মামলায় পাঁচ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড ও একজনকে খালাসের রায় দেওয়ার সময় পর্যবেক্ষণে আদালত এ কথা বলেন।

এর আগে, সকালে রংপুরের বিশেষ জজ নরেশ চন্দ্র সরকার ৯টা ৩৫ মিনিটে বিচারক রায় পড়া শুরু করেন। রায় পড়া শেষ হয় বেলা ১১টা ১৩ মিনিট পর্যন্ত। ৯৮ মিনিটব্যাপী এ রায় পড়ার সময় বিচারক মামলার বিভিন্ন বিষয় উল্লেখ করেন। আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সমর্থনে বাংলাদেশ ও ভারতের উচ্চ আদালতের অসংখ্য নজিরও উপস্থাপন করেন তিনি।

বিচারক তার পর্যবেক্ষণে বলেন, ‘পবিত্র কোরানের ভুল ও মনগড়া ব্যাখ্যা দিয়ে জেএমবির জঙ্গিরা ইসলাম কায়েমের নামে মানুষ হত্যা করেছে। তারা দেশকে অস্থিতিশীল করা এবং দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করার জন্য বিদেশি নাগরিকদের হত্যা করার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে জাপানি নাগরিক ওসি কুনিওকে হত্যা করে।’

পবিত্র কোরানের ‘সুরা মায়েদা’র উল্লেখ করে বিচারক বলেন, ‘সেখানে বলা আছে যদি কোনও ব্যক্তি কাউকে হত্যা করে সে যেন পুরো মানব জাতিকে হত্যা করলো। পবিত্র কোরানে মানুষ হত্যাকে কখনই সমর্থন করা হয়নি বরং নিষেধ করা হয়েছে। অথচ আসামিরা ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে মানুষ খুন শুরু করেছিল।’

তিনি তার পর্যবেক্ষণে আরও বলেন, ‘জাপানি নাগরিক হত্যা মামলায় ৭ আসামি মাসুদ রানা, সাখাওয়াত, এছাহাক, লিটন মিয়া, সাদ্দাম, বাইক হাসান ও আহসান উল্লাহ আনছারী পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী জাপানি নাগরিককে হত্যা করেছে। তবে আসামি সাঈদের বিরুদ্ধে শুধু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলের নম্বর প্লেট পরিবর্তন করার অভিযোগ ছাড়া সে জেএমবি করতো বলে পুলিশ জানিয়েছিল। কিন্তু সাক্ষ্য-প্রমাণে সাঈদ জেএমবি করতো কিংবা সে মোটরসাইকেলের নম্বর প্লেট পরিবর্তন করেছে তা প্রমাণ করতে পুলিশ সম্পূর্ণ ব্যর্থ হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হলো।’

এছাড়া, বিচারক রায় প্রদানের শুরুতেই কীভাবে জাপানি নাগরিককে হত্যা করা হয় কীভাবে পরিকল্পনা করা হয়, সেই পরিকল্পনা কারা করে, কারা কিলিং মিশনে অংশ নিয়ে তাকে হত্যা করে এসব বিস্তারিত বিবরণ মামলার চার্জশিটের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান।

উপরে