বুধবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৮ | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

নিত্যপণ্য ও সেবায় ভ্যাট অব্যাহতি

প্রকাশের সময়: ৪:২৪ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | জুন ১, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকমডটবিডি: নতুন বাজেটে মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট ১৫ শতাংশ রাখা হলেও তিন হাজারেরও বেশি পণ্য ও সেবা ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে সাধারণ মানুষ যেসব রেস্তোরাঁয় খাওয়া দাওয়া করে যেসব প্রতিষ্ঠানও রয়েছে।

প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে সবচেয়ে বেশি কথা হয়েছে ভ্যাট বিষয়েই। ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আরোপ হলে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাবে বলে আশঙ্কার কথা বলে আসছিলেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু অর্থমন্ত্রী এই দিক থেকে অনেকটাই স্বস্তি দিয়েছেন মানুষকে। কারণ, নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরনের পণ্যেই ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, দেশের অভ্যন্তরে সকল অস্থায়ী হোটেল, রেস্তোরাঁয় খাদ্যদ্রব্য সরবরাহে মূসক অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ যেসব হোটেল, রেস্তোরাঁয় খাওয়া দাওয়া করে তাতেও মূসক দিতে হবে না। ফলে এসব হোটেলে খেলে খরচ বাড়বে না।

খাদ্যপণ্য

প্রধানমন্ত্রী ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব করেছেন এমন পণ্যের মধ্যে আছে ময়দা, আটা, চাল, গম, ভুট্টার তৈরি সুজি, সয়াবিন। চীনা বাদাম, তিসি, স্বর্ষপ, সূর্যমুখী ফুলের বীজ, অন্যান্য তেল, লেকোস্ট সীম, সামুদ্রিক আগাছা এবং অন্যান্য সমুদ্র শৈবাল, আখ, চালের কুড়ার তেল, চিনি ও আঁখের গুড়, চোলাইন, সব ধরনের লবন ইত্যাদি। এর ফলে সাধারণ মানুষের জীবনকে নতুন মূসক কোনোভাবেই প্রভাবিত করবে না।

প্যাকেটজাত তরল দুধ, পনির, মাঠা; পাখির ডিম, মধু, আলু, টমেটো, পেঁয়াজ, রসুন, লিকস এবং অন্যান্য এ জাতীয় শাকসবজি; বাঁধাকপি, ফুলকপি, মাথাযুক্ত ব্রকলি, কোহিলাভি, কেইল; লেটুস, চিকোরি, গাজর, শালগম, সালাদ বিটমূল, স্যালসিফাই, সেলেরিয়াক, মুলা, শিম্বারকার শাকসবজি, সকল ধরনের শাকসবজি, নারিকেল, কাজু বাদামসহ ৫৪৯টি পণ্য কিনতেও ভ্যাট লাগবে না।

সকল প্রকার কলা, খেজুর, ডুমুর, আনারস, পেয়ারা, আম, গাব, লেবুজাত ফল, আঙ্গুর, তরমুজ, আপেল, নাশপাতিসহ যেকোনো ফল; গোলমরিচ, ভ্যানিলা, দারুচিনি, লবঙ্গ, জায়ফল, জৈত্রী, এলাচী, মৌরী, ফেনেল, ধনিয়া, জিরা, আদা, জাফনার, হলুদ, তেজপাতা, কারি, মসলা, গম, মেসলিন; রাই, বার্লি, জই, ভুট্টা, ধান, সকল প্রকার চাল, মুড়ি, সোরঘাম শস্য, বাজরা, ক্যানারাই বীজও ভ্যাটের আওতা বহির্ভূত থাকবে।

ভ্যাটের আওতার বাইরে থাকবে আছে জীবন্ত ঘোড়া, গাধা, খচ্চর ও ঘোটক। জীবন্ত গবাদি পশু, ভেড়া ও ছাগল; জীবন্ত পাখিও। এ ছাড়া আড়াই কেজি পর্যন্ত গবাদি পশুর মাংস, শুকরের মাংস, ভেড়া বা ছাগলের মাংস, ঘোড়া, গাধা, খচ্চরের মাংস, হাঁস-মুরগির মাংস (টিনজাত ব্যতীত); জীবন্ত মাছ, আড়াই কেজি পর্যন্ত তাজা, টিনজাত অথবা হিমায়িত মাছ; আড়াই কেজি পর্যন্ত মোড়ক বা টিনজাত ব্যতীত কাঁটা ছাড়ানো মাছ ও মাছের মাংস, শুকনা, লবণাক্ত মাছ; খোলসযুক্ত বা খোলস ছাড়ানো শামুক জাতীয় প্রাণী।

কৃষি উপকরণ

কৃষি কাজে ব্যবহৃত সকল উপকরণ যেমন বীজ, সকল প্রকার সেচ সেবা, বীজ সংরক্ষণ সেবা, মৎস্য, জলজপ্রাণী ও জলজ সম্পদ আহরণ ওসংরক্ষণ সংক্রান্ত সেবা, সকল প্রকার সার, কীটনাশক, যন্ত্রপাতি ইত্যাদিতে মূসক অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে। ডেইরি, ফাউন্ড্রি, পাটশিল্পেরকাজে ব্যবহৃত সকল যন্ত্রপাতিতে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

ওষুধ চিকিৎসা সামগ্রী

ভ্যাটের আওতার বাইরে রয়েছে এমন জীবন রক্ষাকারী উপদানের মধ্যে Ciplatin BP, Pxaliplatin BP, Carboplatin BP, 5-Fluorouracil BP, Methotrexate BP, Capecitabine USP, Temozolomide INN, Anastrozole USP, Erlotinib HCI INN, Gemcitabine HCI USP, Iphosphamide BP, Cyclophosphamide BP, Insulin and its salts, Desogestrel ethinyloestradiol and lynestrenal, Etoposide BP, Vincristine Sulfate USP, Doxorubicin HCL USP, Paclitex USP, Docetaxel USP, Sineprevir sodium, Lepipasvir, Sofobuvir, Ombitasvir, Partiaprevir, Ritonavir, Dasabuvir.

প্রোভিটামিনস ও ভিটামিন, সকল প্রকার জন্মনিরোধক, ভ্যাকসিন ফর হিউম্যান মেডিসিন, লিভার সিরোসিস, হেপাটাইটিস সিনিরাময়কারী, হোমিওপ্যাথিক, আয়ুবের্দিক, ইউনানী ও ভেষজ ওষুধসামগ্রী, কিডনি ডায়ালাইসিস, ক্যান্সার নিরোধক ওষুধ, ম্যালেরিয়ানিরোধক ও কুষ্ঠরোধ নিরোধক ওষুধ, থেলাসেমিয়া, প্রাথমিক চিকিৎসার জিনিস, ২০-৩০ ধরনের মেডিকেল ইক্যুপমেন্ট, হাসপাতালশয্যাও ভ্যাটের আওতার বাইরে থাকবে।

দেশের মধ্যে (সরবরাহ) অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যানবাহনের মাধ্যমে পরিবহন সেবা, ভাড়াকৃত পরিবহন ছাড়া ট্যাক্সি, বাস, মিনিবাস, লঞ্চ, স্টিমার, ফেরির মাধ্যমে পরিবহন সেবা। এয়ারলাইন্স (চার্টার্ড বিমান ও হেলিকপ্টার ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা ব্যতীত), খাদ্যশস্য পরিবহনকারী পরিবহন সেবাও ভ্যাটের আওতার বাইরে থাকবে।

সমাজকল্যাণমূলক কার্যক্রম মূসকের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। যেমন জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বা স্বাস্থ্যসেবা, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ব্যতীত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সকল প্রশিক্ষণ (আগের আইনে শুধু সরকারি প্রশিক্ষণ মূসক অব্যাহতি ছিল), শিশু পালন কার্যক্রম, বয়স্ক, অক্ষম, দরিদ্র বা অক্ষম লোকদের আবাসিক সেবা (আগের আইনে অব্যাহতি ছিল না)। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা কার্যক্রমের জন্যপাঠ্যপুস্তক সরবরাহ কার্যক্রমে (আগের আইনে ৫% ভ্যাট ছিল)।

অন্যান্য

খালি জমি বিক্রয়, হাইটেক পার্ক ও অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানে পণ্য উৎপাদন পর্যায়ে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সরকারের ফাস্ট ট্রেক তালিকাভুক্ত সকল প্রকল্পে সরবরাহ, নির্মাণ, ইন্টারনেট ইত্যাদি সেবাকে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

পিপিপি এর আওতাভুক্ত সকল প্রকল্প, বিদ্যুৎ উৎপাদনে কিছু প্রকল্পে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সকল প্রকার ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, রেডিও ও টেলিভিশনে সম্প্রচার, শিল্পকর্ম, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, অপেশাদারি খেলাধুলা, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, লাইব্রেরি, সকল প্রকার জাদুঘর, আর্টগ্যালারি, চিড়িয়াখানা, বোটানিক্যাল গার্ডেনে প্রবেশ মূল্য, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনকারী প্রতিষ্ঠান, শ্যুটিং ক্লাব, সকল প্রকার সামাজিক সাংস্কৃতিক ও খেলাধুলা, কৃষিপণ্য, উদ্যান বা পশু-পাখির মেলায় প্রবেশ মূল্য, ব্যাংকিং ও বিমা খাতের কমিশন ব্যতীত সকল বিষয় (ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে আমানত, সঞ্চয়), জীবন বীমা ও অগ্নি বীমা, স্টক মার্কেট ও তার সকল কাজ, কম্পিউটারও কম্পিউটার যন্ত্রাংশে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

দেশে উৎপাদিত এলপিজি সিলিন্ডার, ফ্রিজ, টিভি, এসি ও মোটরসাইকেলে ২০১৯ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত অব্যাহতি দেয়া আছে, তা বলবৎথাকবে। দেশীয় সফটওয়্যার উৎপাদন ও সরবরাহে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

উপরে