বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

বিধবার সাথে শিক্ষা অফিসারের প্রেম, অতঃপর

প্রকাশের সময়: ২:০১ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | জুন ২২, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে বিধবাকে বাড়িতে নিয়ে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে। বিয়েতে অস্বীকৃতি জানানোর পর গত সোমবার অভিযুক্ত ওই শিক্ষা অফিসারসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী ওই বিধবার পিতা। ঘটনা পর থেকে গা ঢাকা দিয়েছে ওই শিক্ষা অফিসার।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পীরগঞ্জ পৌর শহরের জগথা মহল্লার এক বিধবা ২০১৬ সালে উপজেলার নারায়নপুর গোয়ালপাড়া দাখিল মাদ্রাসার ভোকেশনাল শাখার শিক্ষার্থী হিসেবে সবুজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভেন্যু কেন্দ্রে নবম শ্রেণীর ফাইনাল পরীক্ষায় আংশ নেয়। এসময় ওই পরীক্ষা কেন্দ্রে পীরগঞ্জ উপজেলার সহকারী শিক্ষা অফিসার মো. মুসা ট্যাগ অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

দায়িত্ব পালনকালে সুদর্শন ওই শিক্ষার্থীর উপর নজর পড়ে শিক্ষা অফিসার মুসার। পরে মোবাইল ফোন নম্বর নিয়ে তার সাথে গড়ে তোলেন প্রেমের সম্পর্ক। চলে চুটিয়ে প্রেম।্এরপর বিয়ের প্রলোভনে গড়ে তোলেন দৈহিক সম্পর্ক।

গত ৫ জুন মুসা তার প্রেমিকাকে নিয়ে যান নিজ বাড়ি হরিপুরের বীরগড়ে। সেখানে তাকে দু’দিন রাখেন। এরপর মুসার আগের স্ত্রী বাড়িতে আসলে দেখা দেয় বিপত্তি। অবস্থা বেগতিক দেখে মুসা প্রেমিকাকে পাঠিয়ে দেন বোনের বাড়িতে। সেখানে কয়েকদিন অবস্থান করে মুসার প্রেমিকা। এরই মধ্যে পারিবারিক চাপে মুসা তার প্রেমিকাকে বিয়ে করতে আপত্তি জানায়।

বিষয়টি গড়ায় থানা পুলিশ পর্যন্ত। অবশেষে গত রবিবার হরিপুর থানা পুলিশ মুসার বোনের বাড়ি থেকে তার প্রেমিকাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। আটক করে তার ভগ্নিপতিকে। এ নিয়ে চলে দেন দরবার। সুরাহা না হওয়ায় পরে নির্যাতিতার পিতা বাদী হয়ে মুসাসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে পীরগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

মামলা রুজুর বিষয়টি নিশ্চিত করে পীরগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, মামলা হয়েছে। মূল আসামী মুসা পলাতক রয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে