বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

শেরপুরের জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে যুবককে কুপিয়ে রক্তাক্ত

প্রকাশের সময়: ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ - রবিবার | জুলাই ২, ২০১৭


কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:
গোলাম রব্বানী-টিটু-শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুরের নকলায় কবর স্থানের পবিত্রতা রক্ষা করতে জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে বাধা দেওয়ায় জুয়াড়ীদের হামলায় আহত হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন আতিকুর রহমান আতিক (৩০) নামে এক যুবক।  দুপুরে উপজেলার চন্দ্রকোণা ইউনিয়নের দক্ষিণ বাছুরআলগা গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে। আহত আতিক স্থানীয় আব্দুল হাকিমের ছেলে। অন্যদিকে ওই ঘটনায় নকলা থানায় মামলা রেকর্ডের পরও গ্রেফতার হয়নি কোন আসামী।
জানা যায়, দক্ষিণ বাছুর আলগা গ্রামের মহব্বত, মিশুক, আলিমুল নামে ৩ যুবক স্থানীয় পারিবারিক গোরস্থানের পাশে বসে তাস দিয়ে জুয়া খেলছিল। ওইসময় গোরস্থানের জমি মাপার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের উপস্থিত হওয়ার কথা। তাই আতিকুর রহমান আতিক জুয়াড়ীদের সেখান থেকে চলে যেতে বললে জুয়াড়ীরা আতিককে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে। গালিগালাজ শুনে আতিকের বড়ভাই মমিনুল ইসলাম মমিন বাড়ি থেকে গোরস্থানে গিয়ে আতিককে বাড়িতে নিয়ে আসার কিছুক্ষণ পর এলাকার প্রভাবশালী ওয়াহিদ মুরাদের নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন রামদা, চাইনিজ কুড়াল, ধারালো শাবল ও লোহার রড নিয়ে আতিকের বাড়িতে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে তারা আতিকের মাথায়, কোমরে ও উরুতে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। তার ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে তারা পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর অবস্থায় আতিককে প্রথমে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। ওই ঘটনায় আতিকের বড়ভাই মমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে ৭ জনকে আসামী করে নকলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে পরদিনই তা নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়। তবে আসামীরা প্রভাবশালী মহলের শেল্টারে থাকায় এখনও ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।
নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খাঁন আব্দুল হালিম সিদ্দিকী বলেন, ঘটনার বিষয়ে নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে। তদন্তের পাশাপাশি আসামীদের গ্রেফতারেও চেষ্টা চলছে।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে