মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ | ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

মানিকগঞ্জে সড়কের বেহাল দশা,ভোগান্তিতে ১৫ গ্রামবাসী

প্রকাশের সময়: ৩:০৩ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৭

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি
শফিকুল ইসলাম  সুমন,মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি
জেলার  ঘিওর উপজেলার ঘিওর-ঠাকুরকান্দি – রসুলপুরের এক কিলোমিটার  ইটের সড়কটি সড়কটি দীর্ধদিন সংস্কার না করায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ১৫ টি গ্রামের মানুষের।ঘিওর ইউনিয়নের পোস্তা গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হামিদুর রহমান আলাইয়ের বাড়ি থেকে রসুলপুর গ্রামের বাবুর বাড়ির ব্রীজ পর্যন্ত  সড়কটি খানা খন্দে ভরা থাকলেও কর্তৃপক্ষ কোন সংস্কার না করায় প্রায় দুর্ঘটনা ঘটছে।
ভাঙ্গা সড়ক দিয়ে প্রায়  প্রতিদিনিই ঘিওর সদর উপজেলার ঠাকুরকান্দি, রসুলপুর গ্রামের মানুষ ও দৌলতপুর উপজেলার খলসী, চর খলসী, রাহাতহাটি, জামিরকান্দা, ভররা, বনগ্রাম, নবগ্রাম, বিনোদপুর, কুমুরিয়া, বর্দমকান্দি,নেকিরকান্দিসহ প্রায় ১৫ টি গ্রামের মানুষ চলাচল করে ।
স্থানীয় কয়েকটি স্কুল,কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা  চলাচল করে। এছাড়া  কৃষি পণ্য বিভিন্ন হাট বাজারে পৌছানোর  ক্ষেত্রে  কৃষকদের বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে।
চলতি বন্যাসহ কয়েক বছরের বন্যায় রাস্তাটি  একেবারেই চলার অনুপযোগী হয়ে পড়ায়  এই সড়ক দিয়ে  কোন অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে নেয়ার ক্ষেত্রে আরও বিপাকে পড়তে হয় স্থানীয়দের। এ সড়কের অন্তত ২০  টি স্থানে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে।এছাড়া ইটের সোলিং এর রাস্তা ইটগুলো রাস্তা থেকে আলাদা হয়ে গেছে।এই সড়কে চলচালকারী  সি.এন.জি চালকরা  বলেন,রাস্তা ইটের হওয়ার আগে কাচামাটির  ছিল তাও ভাল ছিল।দীর্ঘ দিন ধরে  এই  সড়কটি এমন ভাবে খানা খন্দ সৃস্টি হয়েছে, যানবাহন নিয়ে প্রায় দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে। এর আগে ব্যাকিÍগতভাবে তারা রাস্তাটি মেরামত করেছিল বলে জানান। ঘিওর গার্লস স্কুলের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, প্রতিদিন খুব কষ্ট করে তাদের পায়ে  হেঁটে স্কুলে যেতে হচ্ছে। সিএনজিতে উঠলে রাস্তা খারাপ থাকার কারনে ভাড়া  বেশী নেয় আবার ভয়ও লাগে। ভাড়া বেশী দিয়ে সিএনজিতে উঠলেও আমাদের অতিরিক্ত সময় লাগে সড়কটি খারাপ থাকায়।স্থানীয়রা জানান রাস্তাটির দীর্ঘ দিন ধরে চলাচলের অনুপোযোগী থাকলেও কর্তপক্ষ  কোন সংস্কার কাজ করছেন না।
এ বিষয়ে ঘিওর সদরের ইউপি চেয়ারম্যান অহিদুল ইসলাম টুটুল বলেন, আমি ব্যাক্তিগত উদ্যোগে রাস্তাটি সংস্কারের জন্য  অর্থ ব্যায় করেছি। রাস্তাটি সংস্কারের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী বরাবর আবেদন করেছি। চলতি অর্থ বছরেই সংস্কারের কাজ শুরু হবে।
এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল বারেক হাওলাদার জানান,আমরা রাস্তাটি সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছি অবিলম্বে তা বাস্তবায়ন করা হবে।

উপরে