বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ | ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মসমর্পণ

প্রকাশের সময়: ১০:৩০ অপরাহ্ণ - বুধবার | মার্চ ১৪, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:
শেখ আমিনুর হোসেন, সাতক্ষীরা: পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা করে থানায় আত্মসমর্পণ করেছে পাষ- স্বামী। বুধবার ভোরে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটানোর পর অনুতপ্ত স্বামী থানায় আত্মসমর্পণ করেছে।
নিহতের নাম নাছিমা খাতুন (৩৬)। তিনি কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের জালালউদ্দিন সানার(৪৯) স্ত্রী ও একই গ্রামের আনোয়ার মোড়লের মেয়ে।
মানপুর মহিলা দাখিল মাদ্রাসার ছাত্রী রাবেয়া খাতুন ও মোহাম্মদনগর দারুন সুন্নত দাখিল মাদ্রাসার ছাত্রী খাদিজা খাতুন জানান, সংসারে অভাবের কারণে তাদের বাবা জালাল সানার সঙ্গে মা নাছিমা খাতুনের প্রায় ঝগড়া হতো। একপর্যায়ে পাঁচ বছর আগে বাবা তার মাকে তালাকনামা পাঠালে মা বাদি হয়ে আদালতে নারী নির্যাতন মামলা করেন। শমন পেয়ে বাবা মায়ের সঙ্গে আপোষ করে নেয়। এরপরও বাবা তাদের সঙ্গে না থেকে দাদী আছিয়া খাতুন ও চাচাদের সঙ্গে বাস করতো। এ সময় শ্যামনগর উপজেলার জয়নগরের নেছার মাওয়ালানার স্বামী পরিত্যক্ত মেয়েকে বিয়ে করার জন্য বাবা পাগল হয়ে ওঠে। মঙ্গলবার রাত ১০ টার পরে তারা দু’ বোন ঘুমিয়ে পড়ার আগে বাবা ও মায়ের সঙ্গে ঝগড়া হতে শুনেছেন। বুধবার ভোরে ঘরের মধ্যে মায়ের জবাই করা লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের খবর দেওয়া হয়।
কালিগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক সোহরাব হোসেন জানান, পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে বুধবার ভোরে স্ত্রী নাছিমা খাতুনকে ধারালো দা দিয়ে জবাই করে হত্যা করে তার স্বামী রাজমিস্ত্রি জালাল সানা থানায় আত্মসমর্পণ করে। এ ঘটনায় অনুতপ্ত হয়ে জালাল বুধবার সকালে এসে আত্মসমর্পণ করে। হত্যাকা-ে ব্যবহৃত দা’টি পুলিশ উদ্ধার করেছে। বুধবার বিকেলে লাশের ময়না তদন্ত শেষে তার স্বজনদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আনোয়ার মোড়ল বাদি হয়ে জালাল সানার নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। বৃহষ্পতিবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে জালাল সানাকে জেল হাজতে পাঠানো হবে।

উপরে