রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

BS211: নেপালের হাসপাতালে মূমুর্ষ অবস্থায় বেঁচে আছেন শিবচরের কবির

প্রকাশের সময়: ১০:৩৫ অপরাহ্ণ - বুধবার | মার্চ ১৪, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:
রিফাত ইসলাম, শিবচর: নেপালের কাঠমুন্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত ইউএস-বাংলার বিমানে অর্ধশতাধিক নিহত ও আহত অবস্থায় হাসপাতালে দশজনের মধ্যে মাদারীপুরের শিবচরের এক কসমেটিক্স ব্যবসায়ী রয়েছেন। তার শরীরের বিভিন্ন অংশ অগ্নিদগ্ধ হয়ে, পা ভেঙ্গে গুরুতর আহত হয়েছেন। উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে তাকে দ্রুত সুস্থ করে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবী করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাশকান্দি ইউনিয়নের বাজিতপুর গ্রামের মৃত মোকসেদ মাদবরের ছেলে কবির মাদবর(৪৫ দীর্ঘ দিন ধরে ঢাকার উত্তরার কোটবাড়ি মাস্টার পাড়া এলাকায় স্বপরিবারে বসবাস করেন। তিনি নেপাল ও বাংলাদেশে কসমেটিক্স ব্যবসায় জড়িত। ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে তিনি প্রায়ই নেপালে যাওয়া-আসা করেন। নেপালের কাঠমুন্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত ইউএস-বাংলার বিমানে থাকা ৩৬ বাংলাদেশির মধ্যে চারজন ক্রু এবং ২২ যাত্রীর মৃত্যু হলেও আহত অবস্থায় হাসপাতালে দশজনের মধ্যেতার শরীরের বিভিন্ন অংশ অগ্নিদগ্ধ হয়ে পুড়ে গেছে, দু পা আঘাতে ভেঙ্গে গেছে ও মাথায় গুরুতর আঘাত লেগেছে বলে পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে। তার ছেলে শাওন মাদবর দুর্ঘটনার পর কাঠমুন্ডুতে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে। এদিকে ভয়াবহ এ দুর্ঘটনার কবির বেচে থাকায় পরিবারের সদস্যরা শুকরিয়া আদায় করলেও উন্নত চিকিৎসার দাবী জানিয়েছেন। দূর্ঘটনার খবর বাড়িতে পৌছানোর পর পরিবারের মাঝে চরম অস্থিরতা বিরাজ করছে। কবির মাদবর নেপাল হাসপাতালে অবস্থানরত কবিরের ছেলে শাওন বলেন, বিমান দূর্ঘটনায় আমার বাবার শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে, পা ভেঙ্গে গেছে, মাথায় প্রচন্ড আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন। তাকে নেপাল হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হলেও আমরা তার সঠিক চিকিৎসা নিয়ে সন্দিহান। আমরা তার উন্নত চিকিৎসার দাবী করি।
ঢাকায় অবস্থানরত কবিরের স্ত্রী হেনা বেগম বলেন, বিমান দূর্ঘটনায় অনেক লোকের মৃত্যু হলেও আমার স্বামী গুরুতর আহতাবস্থায় বেঁচে আছেন এজন্য আল্লাহর কাছে আমরা শুকরিয়া জানাই। তবে আমরা চাই উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে তাকে দ্রুত সুস্থ করে তোলা হোক।
কবিরের বড় ভাই আফসার মাদবর বলেন, আমার ভাই এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। আমরা পরিবারের সকলে তার সুস্থতা নিয়ে চিন্তিত। আমরা চাই প্রয়োজনে তাকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানো হোক।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে