বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

পেঁয়াজ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে পঞ্চগরের চাষীরা

প্রকাশের সময়: ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ - মঙ্গলবার | এপ্রিল ৩, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার সোনাহারে পেঁয়াজের ব্যাপক চাষ হচ্ছে। ২০১৭ সালের বন্যায় দেবীগঞ্জ এলাকায় কৃষির ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়, অপরদিকে বন্যায় করতোয়া নদীর দুইধারে পলি পড়ায় কৃষির জন্য অনুকূল হয়ে উঠে। কৃষকরা বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষি বিভাগের পরামর্শে স্থানীয় জাতের দেশি পেঁয়াজ চাষ করেন। পেঁয়াজ চাষে অল্প পরিশ্রমে অধিক লাভ হয় এমন কথা কৃষকরা জানিয়েছেন।

দেবীগঞ্জের সোনাহার গ্রামের কৃষক আ. হাকিম জানান, তিনি গত বছর দেড় বিঘা জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছিলেন। এতে ৫৫ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছিল। গত বছর তিনি ভালোই লাভ পেয়েছেন। এ বছর তিনি ২ বিঘা জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছেন। এ বছর আবহাওয়া ভালো থাকায় আশা করছেন ৭০ মণ পেঁয়াজ উৎপাদন হবে। যদি ভারতীয় পেঁয়াজ না আসে তবে ভালো দাম পাবে।

একইভাবে দেবীগঞ্জ উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নের সেনপাড়া গ্রামের কৃষক পরেশ চন্দ্র সেন জানান, পেঁয়াজ চাষ লাভজনক ফসল তিনি দীর্ঘদিন ধরে পেঁয়াজ চাষ করে আসছেন। এ বছর তিনি ৩ বিঘা জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছেন। আবাদ মোটামুটি ভালোই হয়েছে বলে জানালেন তিনি। পেঁয়াজ চাষি তোফাজ্জল হোসেন, আফছার উদ্দিন জানান, যদি ভারত থেকে পেঁয়াজ না আসে তবে পেঁয়াজের ভালো দাম পাবেন তারা। তারা বলেন, বিঘাপ্রতি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা পেঁয়াজ চাষে খরচ হয়। আর এক বিঘা জমির পেঁয়াজ ৫০/৬০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারে।

পঞ্চগড় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সামছুল হক বলেন, চলতি বছর জেলায় ১৩৪১ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হয়েছে তন্মধ্যে দেবীগঞ্জ এলাকায় বেশি। এখানে ৮১০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। গত বছর জেলায় ১২৮১ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের চাষ হয়েছিল। তিনি বলেন, চলতি বছরে পেঁয়াজের চাষ ভালো হয়েছে, ভালো দাম পেলে কৃষকরা লাভবান হবেন এবং আগামী বছর পেঁয়াজ চাষ বৃদ্ধি পাবে।

উপরে