বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

নাসিরনগরে এস,এস,সি পরীক্ষার্থী নব বধূর রহস্যজনক মৃত্যু

প্রকাশের সময়: ৭:১১ অপরাহ্ণ - রবিবার | এপ্রিল ৮, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:

মোঃ আব্দুল হান্নান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের পূর্বভাগ গ্রামে নব বধূ এস,এস,সি পরীক্ষার্থীর রহস্য জনক মৃত্যু। ঘটিনাটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে এলাকায় নানান গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে।  ঘটনাটি ঘটেছে ৮এপ্রিল ২০১৮ রোজ রবিবার সকাল সাড়ে ৯ ঘটিকায় নব বধূর শ্বশুর বাড়ীর বসত ঘরে।  ঘটনার বিবরণে জানা গেছে ওই নব বধূ পান্না বেগম, পিতামৃত-শাহ আলম খান,বাড়ী হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার পশ্চিম বেজোড়া গ্রামে। পান্নার চাচা আজাদ খান মাষ্টার জানান পান্না এবার এস,এস, সি পরীক্ষা দিয়েছে। ফলাফলের অপেক্ষায় আছে। আনুমানিক ৪ মাস পূর্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের পূর্বভাগ গ্রামের হাবিব উল্লাহর ছেলে সৌদি প্রবাসী মোঃ ইমরানের (২৮) সাথে পান্নার বিয়ে হয়। বিয়ের প্রায় দেড় মাস পরেই ইমরান চলে যায় সৌদি আরবে।  পান্নার বোন জামাই সৌদি প্রবাসী মোঃ আনোয়ার হোসেন এ প্রতিনিধিকে জানান বিয়ের পর থেকেই স্বামী তার ছোট ভাই চট্টগ্রামে কর্মরত পুলিশ সদস্য সাদেক মিয়া ও ছোট বোন পান্নাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করত। বিশ্বস্থ সূত্রে জানা গেছে ঘটনার দিন ভোরে গোপনে সাদেক বাড়ী থেকে চলে যায়।
আনোয়ার আরো জানান খালাত বোনের সাথে ইমরানের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তাতে পান্না বাধা নিষেধ করত। যার জন্য ইমরান পান্নাকে কখনো ভাল চোখে দেখত না। পান্না প্রায়ই মোবাইল ফোনে এ কথাগুলো তার বড় বোনের স্বামী আনোয়ারকে জানা। আনোয়ার বলেন আমি বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য ইমরানকে সৌদি আরব থেকে মোবাইল ফোনে অনেক বুঝাইয়াছি ।

এ বিষয়ে পান্নার শ্বশুড় মোঃ হাবিব উল্লাহ সাবেক মেম্বারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে, তিনি বলেন পান্না হত্যার কারণ সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। সকালে আমি আমার স্ত্রী, আমার মেয়ে ও ছেলের বউ পান্না এক সাথে খাওয়া দাওয়া শেষে বাজারে দোকানে চলে আসি। সকাল সাড়ে ৯ টার সময় পান্নাকে না পেয়ে তার শ্বাশুড়ী পান্নার ঘরে খুঁজতে গেলে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ দেখতে পায়। অনেক ডাকাডাকি করার পরেও দরজা না খুললে প্রতিবেশীরা মিলে দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে ফ্যানের সাথে উড়না প্যাচিয়ে পান্নার ঝুলন্ত অবস্থা লাশ দেখতে পায়। ্এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ রয়েছে।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে