শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

ভৈরবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের তালা ভেঙ্গে টাকা চুরির ঘটনায় ব্যবসায়িকের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশের সময়: ৮:০৬ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | জুলাই ৩, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

রাজীবুল হাসান, ভৈরব প্রতিনিধি : ভৈরবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের তালা ভেঙ্গে টাকা চুরির ঘটনায় ব্যবসায়িকের সংবাদ সম্মেলন।
আজ মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় ভৈরব প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্টিত হয়েছে।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভুক্তভোগি শুভ জেনারেল স্টোরের মালিক মো.জলিল মিয়া। তিনি জানান, গত ২৭ জুন বুধবার সকাল ৭ টায় ভৈরব বাজারস্থ মিষ্টিপট্রি শুভ জেনারেল স্টোরে সাটারের তালা ভেঙ্গে দোকানের ক্যাশে থাকা ১৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা চুরি করে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ব্যাপারে তিনি ভৈরব থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের এক
সপ্তাহ কেটে গেলেও চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধারে পুলিশের তৎপরতা নেই বলে অভিযোগ করেন তিনি। জলিল মিয়া জানান, ব্যবসায়ী লেনদেন শেষ করে প্রতিদিনই ব্যাংকে টাকা রাখা হয়। কিন্তু জুরুরি ব্যবসায়িক লেনদেনেরর প্রয়োজনে ক্যাশ বক্সে ১৫ লাখ টাকা রাখা ছিল। চোর চক্র ক্যাশ থেকে ১৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা নিয়ে গেছে। সিসি ক্যামরায় ফুটেজ দেখে চোরের চেহারা সনাক্ত করার পরও চুরির ঘটনায় সুরাহা মিলছে না।

উলে­খ্য যে, গত কয়েক মাসে ভৈরববাজারে বেশ কয়েকটি বড় ধরনের চুরির ঘটনা ঘটেছে। গত ৩০ অক্টোবর কাজী রতনের কাজিয়ান স্টোর থেকে ৯ লাখ, ২৭ এপ্রিল মো.বদরুল হুদা তপু এর কবির ব্রাদার্স থেকে ১০ লাখ টাকা ,নিউ চক বাজারের মোল­া স্টোর থেকে ২০ হাজার টাকা চুরিসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসাবাড়িতে লাগাতার চুরির ঘটনা ঘটছে। পুলিশ প্রশাসনকে এসব বিষয়ে অবগত করার পরও ব্যবসায়ীরা কোন সহযোগিতা পাচ্ছেনা। উল্টো চুরি প্রতিরোধে বাজারের ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন সহনানা কর্মসূচী পালন করতে গেলে পুলিশ প্রশাসন তাদেরকে বাঁধা দেয় বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ রয়েছে।
এ সময় সংবাদ সম্মেলনে চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্টি সহ সভাপতি মারুকি শাহিন বলেন, ভৈরবে এধরণে চুরির ঘটনা প্রতিনিহতই ঘটছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর নেই কোন নজরদারি। যার ফলে বাজারে ব্যবসায়ীরা আতংকে দিন পার করছেন।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো.আল আমিন বলেন, বাজারে এ ধরনের চুরির পিছনে একটি সিন্ডিকেট কাজ করছে। একাধিক দুর্ধষ চুরি ঘটনা ঘটেছে কিন্তু এখন পযর্ন্ত কাউকে আটক করতে পারি আইনশৃঙ্খলা বাহিনা। তিনি আরো বলেন বাজারে ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা প্রদানে গঠন করা হয়েছিল কমিউনিটি পুলিশ সেবা কিন্তু সে সেবা পাবার দুরের কথা তাদের কার্যক্রমই বন্ধ রয়েছে। যার ফলে ভৈরবে দিনদিন চুরির ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কমিউনিটি পুলিশ সেবা কাযর্ক্রম যদি পূর্নরায় সচল করা যায় তাহলে বাজারে ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে ভূমিকা রাখবে বলে তিনি দাবি করেন।

ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোখলেছুর রহমান জানান, ব্যবসায়ী জলিল মিয়া কেন ১৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা রাতে দোকানে রেখে গেল। তার অসতর্কতার জন্যই এঘটনাটি ঘটেছে। ব্যবসায়ীদেরকেও সচেতন হতে হবে। তিনি বলেন আমরাতো দোকানে দোকানে পুলিশ পাহারা দিতে পারবনা। চুরির ঘটনাগুলি তদন্ত হচ্ছে এবং অপরাধীদেরকে সনাক্ত করে গ্রেফতার করার চেষ্টা করছে পুলিশ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভৈরব শহর আওয়ামীলীগ সাবেক সভাপতি ইফতেকার হোসেন বেনু, ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো.আল আমিন, চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি সহসভাপতি আলহাজ্ব মারুকী শাহিন, ভৈরব চক বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুস সাত্তার , সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ , শুভ জেনারেল স্টোরের স্বত্ত্বাধিকারী মো: জলিল মিয়া প্রমূখ। এছাড়াও এসময় ভৈরব বাজারের শতাধিক ব্যবসায়ীসহ ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে