সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

স্থায়ী জলাবদ্ধতায় দাউদকান্দির গৌরীপুর এলাকা

প্রকাশের সময়: ৬:২৭ অপরাহ্ণ - বুধবার | জুলাই ৪, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি:

জাকির হোসেন হাজারী, কুমিল্লা উত্তর প্রতিনিধি: কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বাজার থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মোড় পর্যন্ত হোমনা-গৌরীপুর সড়কের ১কিলোমিটার অংশে দু’পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে রাস্তায় হাটু পানি জমে যায়। ফলে সৃষ্টি হয় যানজট। আর এ যানজটে আটকে ছোট বড় যানবাহন সহ পথচারীদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। সড়কের দু’পাশের সরকারী ডোবা ও জলাশয় অপরিকল্পিত ভাবে ভরাট করায় এবং গত কয়েকদিনের টানাবর্ষনে গৌরীপুর বাজারসহ পেন্নাই ও আঙ্গাউড়া গ্রাম দু’টিতেও স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী গৌরীপুর বাজার এখন জলাবদ্ধ এলাকায় পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই এখানকার ঈঁদগা সড়ক, চাল বাজার ও আকবর আলী কলেজ সড়ক ১ফুট থেকে দেড় ফুট পানির নিচে তলিয়ে যায়। আর গত কয়েকদিনের টানাবর্ষণে মনে হয় গৌরীপুর বাজারের ভেতর দিয়ে ছোট নদী বয়ে গেছে । সড়ক না ছোট নদী তা দেখে বোঝার উপায় নেই। গৌরীপুর- হোমনা সড়কের বাজার থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মোড় পর্যন্ত ১কিলোমিটার অংশে সড়কের পশ্চিম পাশের সরকারী ডোবাগুলো অপরিকল্পিতভাবে ভরাট করায় উত্তর পেন্নাই ও আঙ্গাউড়া গ্রামেও স্থায়ী জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।
এসব জলাবদ্ধতার কারণ হিসেবে দেখা যায়, গৌরীপুর- হোমনা সড়কের উল্লেখিত ১ কিঃমিঃ অংশের পশ্চিম পাশের সরকারী ডোবাগুলোর অপরিকল্পিত ভরাট এবং দু’পাশের স্থাপনা গুলো সড়ক হতে উচু হওয়ায় এবং বাসা বাড়ীর ব্যবহৃত পানি নিস্কাসনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টির পানিসহ সব সড়কের উপর জমাট হয়। গৌরীপুর বাজারের সরকারী জলাশয় ও খাল দখল করে প্রভাবশালীদের স্থাপনা নির্মাণ করা, ময়লার স্তুপ দিয়ে খালের মুখ বন্ধ করা, এবং অপরিকল্পিতভাবে কলা বাজার ঢালাই করাসহ পুরনো ড্রেনের উপর দোকানপাট বসানোর ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই এ জলাবদ্ধতা স্থায়ী রূপনেয় বলে মনে করেন বাজারের ব্যবসায়ীরা।


পেন্নাই ও আঙ্গাউড়া গ্রামবাসীরা জানান, সড়কের পশ্চিম পাশের সরকারী ডোবাগুলো পিছনের জমির মালিকরা অপরিকল্পিতভাবে ভরাট করায় আমরা স্থায়ী জলাবদ্ধতার মুখে পড়েছি। সড়কের দু’পাশে ড্রেন নির্মান ছাড়া এ জলাবদ্ধতা থেকে পরিত্রানের কোন উপায় নাই।
গৌরীপুর বাজার কমিটির সভাপতি হাজি ওমর আলী বলেন, প্রতি সপ্তাহে ড্রেন গুলো পরিস্কার করেও জলাবদ্ধতা দুর করতে পারছিনা। কারণ কলা ও সবজি বাজারে ড্রেন নির্মান না করেই রাস্তা পাকা করায় এ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হচ্ছেনা। এ কারনে চাল বাজারে সব সময় পানি জমে থাকে। আর আসলে এটা আমার একার পক্ষে সম্ভব হবে না। বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসি সচেতন হলে ,তারা ড্রেনে ভিতর আবর্জনা, পলিথিন, না ফেলে নির্দিষ্ট জায়গায় রাখলে এ জলাবদ্ধতার সৃস্টি হতোনা।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে