বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮ | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

গাইবান্ধায় বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত

প্রকাশের সময়: ৩:৩৬ অপরাহ্ণ - রবিবার | জুলাই ৮, ২০১৮
কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি
ফরহাদ আকন্দ, গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে শামছুল হক (৪২) নামে এক ডাকাত সর্দার নিহত হয়েছেন।  রোববার ভোরে গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কের বেতকাপা ইউনিয়নের সাকোয়া ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।  এতে ৬ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, এক রাউন্ড গুলি ও গুলির খোসা জব্দ করা হয়েছে।
শামছুল হক আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার এবং হত্যা ও ডাকাতিসহ ১২টি মামলার আসামি ছিলেন। শামছুল হকের বাড়ি পলাশবাড়ী উপজেলার বেতকাপা ইউনিয়নের ছাতারপাড়া গ্রামে।
গাইবান্ধা সদর, সাদুল্লাপুর ও পলাশবাড়ী থানার পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকেলে শামছুল হককে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে গাইবান্ধা সদর ও সাদুল্লাপুর থানার পুলিশ। পরে তাকে নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় অস্ত্র ও অন্য ডাকাতদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হয়। এসময় অভিযানে যুক্ত হয় পলাশবাড়ী থানার পুলিশ। অভিযান চলাকালে রোরবার ভোরে সাঁকোয়া ব্রিজ এলাকায় পৌঁছিলে উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে ডাকাত দলের সদস্যরা।
এসময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে ডাকাত সর্দার শামছুল হক গুলিবিদ্ধ হন। পরে শামছুল হককে উদ্ধার করে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, এক রাউন্ড গুলি ও গুলির খোসা জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হন কর্মকর্তাসহ ছয় পুলিশ সদস্য। তাদের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শামছুল হকের বিরুদ্ধে গাইবান্ধা সদর, সাদুল্লাপুর ও পলাশবাড়ী থানাসহ বিভিন্ন থানায় হত্যা ও ডাকাতিসহ ১২টি মামলা রয়েছে।
গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার বলেন, শামছুল হকের মরদেহ  ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হলে পরিবারের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হবে। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

উপরে