বুধবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৮ | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

নিসচার মৌলভীবাজার শাখার আয়োজনে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশের সময়: ৯:১০ অপরাহ্ণ - রবিবার | জুলাই ১৫, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

এ.এস.কাঁকন, মৌলভীবাজার: নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) -এর মৌলভীবাজার জেলা শাখার আয়োজনে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুর ৩টায় জেলা শহরের প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে প্রশিক্ষণরত প্রাইমারী স্কুল শিক্ষকদের জন্য সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক এই শিক্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন নিসচার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও কিংবদন্তী চলচ্ছিত্র অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন।

নিসচার জেলা কমিটির আহ্বায়ক খিজির মুহাম্মদ জুলফিকারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর হোসেনের পরিচালনায় প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সরওয়ার আলম, নিসচার কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও প্রধান প্রশিক্ষক সৈয়দ আহসানুল হক কামাল, নিসচার কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাাদক ও প্রশিক্ষক এস.এম আজাদ হোসেন, নিসচার জেলা কমিটির উপদেষ্টা এমএ রহিম শহীদ সিআইপি, পিটিআই’র তত্বাবধায়ক এ.কে.এম সাইফুল হাসান, যুগ্ম মহাসচিব লিটন এরশাদ, ট্রাফিক পুুলিশের ইন্সপেক্টর সালাহউদ্দিন কাজল।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, নিজের প্রাণ নিজেকে বাচাতে হবে। এখানে অন্যের উপর দোষ দিলে হবে না। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক লেভেলে সড়ক দুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে সচেতনতা বিষয়ক পাঠ পরিক্রমা দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল নিসচা। সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর বিষয়টি আমলে নেয়নি।

তিনি আরো বলেন সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবছর মোট জিডিপির ১.৬ শতাংশ ক্ষতি হয়, যার পরিমান ৪০ হাজার কোটি টাকা। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন ২০৫০ সালের মধ্যে দেশের জনসংখ্যা ৩০ কোটি হবে। এখন থেকে পরিকল্পনার মাফিক সড়ক সমস্যা দূরীকরণে সংশ্লিষ্টরা ভূমিকা পালন না করেন তাহলে দূর্ঘটনায় অনাকাঙ্খিত মৃতের সংখ্যা ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান আরো বৃদ্ধি পাবে।

নিসচার উদ্যোগে এসএসসি উত্তীর্ণ ৫’শ ছেলেদের এ পর্যন্ত ট্রেনিং ও লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সরকারিভাবে পৃষ্ঠপোষকতা ও সাহায্য পাওয়া গেলে এই সংখ্যা আরো বেশী হতো। তিনি বলেন প্রতি বছর সড়ক দূর্ঘটনায় যানবাহন যাত্রীর মৃত্যু হয় ৪৯ শতাংশ আর পথচারী মারা যান ৫১ শতাংশ।

উপরে