বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

গোলাপগঞ্জের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী লিপন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে

প্রকাশের সময়: ১১:৩২ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | জুলাই ৩১, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ (সিলেট) থেকে: গোলাপগঞ্জ উপজেলার কুখ্যাত সন্ত্রাসী লিপন চন্দ্র দেব অবশেষে গণ পিঠুনিতে মারা গেছে। মুসলিম-হিন্দু, বন্ধু- শত্রু কেহই তার অত্যাচার থেকে রক্ষা পায়নি। একদিকে সন্ত্রাসী আচরণ, অন্যদিকে মিথ্যা মামলা দিয়ে বিভিন্ন জনকে হয়রানি করা তার যেন নেশায় পরিণত হয়েছিল। গত সোমবার এলাকার মানুষ অতিষ্ট হয়ে তাকে ধরে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে। এসময় তার বাড়ী থেকে মদ, গাঁজা, ইয়াবাসহ বিভিন্ন ধরনের নেশাজাত দ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে বলে প্রাপ্ত সংবাদে জানা যায়।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দত্তরাইল নওয়াপাড়া গ্রামের মৃত নগেন্দ্র চন্দ্র দেবের পুত্র লিপন চন্দ্র দেব (৪০) এলাকার মানুষের কাছে যেন এক আতংক। স্থানীয় ক্ষতিপয় মুসলিম বখাটে যুবকের সহযোগীতায় এলাকায় সে দীর্ঘ দিন ধরে মাদক ব্যবসাসহ নানা ধরণের অপকর্ম করে যাচ্ছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের অন্ত নেই, প্রতি বছরই তাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ধরনের অঘটন ঘটে এলাকায়। তার বাড়ী মাদক সেবীদের নিরাপদ আস্তানা হিসেবে পরিচিত। কেহ তার অপকর্মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে লিপন ধারালো দা নিয়ে হামলা চালায় প্রতিবাদী জনতার উপর। তার অত্যাচার থেকে নিজের পিতা মাতাও রক্ষা পান নি। পিতামাতার অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ ইতিমধ্যে একাধিকবার লিপনকে আটক করে জেলে পাঠিয়েছে। বিগত ২ বছর পূর্বে পাশর্^বর্তী মসজিদে ঢুকে মুসল্লিদেরকে মারধর করলে বিষয়টি বড় ধরনের রূপ ধারণ করে। এনিয়ে ও পাল্টা পাল্টি মামলা হয়েছিল। সর্বশেষ গত ২৭ জুলাই সকাল ১১টায় লিপন তার প্রতিবেশী বিধবা লাল মতি রুহি দাসের জায়গা জমি দখল করার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। এসময় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে লাল মতির গৃহে প্রবেশ করে তার পরিবারের অন্যান্যদেরকে মারধর ও জখম করে নগদ টাকা পয়সা মূল্যবান জিনিস পত্র নিয়ে যায়। এমনকি।

এব্যাপারে লাল মতি রুহি দাস (২৮), বাদী হয়ে গোলাপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করলে সন্ত্রাসী লিপন ক্ষিপ্ত হয়ে আবারও লাল মতির বাড়ীতে হামল চালায়। এতে লাল মতি ও তার পরিবারের লোকজন আতংকিত হয়ে পার্শ্ববর্তী হিন্দু-মুসলিম সবার সহযোগীতা চান। একটি নিরীহ পরিবারের উপর নির্যাতনের বিষয়ে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হলে স্থানীয় লোকজন লিপনকে এব্যাপারে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য সামাজিক ভাবে উদ্যোগ নিলে লিপন এলাকার লোকজনকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলতে থাকে তার ব্যাপারে কেউ বাড়া-বাড়ি করলে স্ত্রী সন্তানদেরকে খুন করে এলাকার লোকজনকে ফাঁসিয়ে দেয়া হবে। গত শনিবার বিকেলে এলাকার মানুষ জানতে পারেন লিপনের বাড়ীতে মাদক সেবীরা আড্ডা দিচ্ছে, এমনকি তার বাড়ীতে মাদক দ্রব্য রয়েছে। এমন সংবাদে লোকজন লিপনের বাড়ী ঘেরাও করে পুলিশকে খবর দিলে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এসআই শংকর চন্দ্র দেব একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে আটকের চেষ্টা করেন। এসময় লিপন পুলিশ ও জনতাকে উদ্দেশ্য করে কাঁচের বোতল ভেঙ্গে তাদেরকে উদ্দেশ্য করে ঢিল মারতে থাকে। এমনকি পুলিশকে উদ্দেশ্য করে ধারালো দা দিয়ে কোপ দিতে চাইলে সে উপস্থিত জনতার পিটুনির শিকার হয়। এক পর্যায়ে জনতার সহযোগীতায় পুলিশ সন্ত্রাসী ও মাদকব্যবসায়ী লিপনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় লিটন অসুস্থ্যতা বোধ করলে পুলিশ তাকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য প্রথমে গোলাপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তার অবস্থার অবনতি হলে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধিন অবস্থায় মাদক ব্যবসায়ী লিপন রাত সাড়ে ৯টায় মৃত্যু বরণ করে। প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণে জানা যায় লিপনকে যখন পুলিশ আটক করে তখন তার মা হেপি রানি দেব এসে তাকে লাথি মেরে বলেন তর মুখ আর আমি দেখতে চাই না। এটা যেন আমার শেষ দেখা হয়।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে