বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

চিহ্নিত অপরাধী থেকে সাধুবাবা

প্রকাশের সময়: ৩:০৪ অপরাহ্ণ - বুধবার | আগস্ট ১, ২০১৮

 

 

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি 

ভারতের অসংখ্য সাধুর মধ্যে তিনিও একজন। শিষ্যদের কাছে এই সাধু ‘গোল্ডেন বাবা’ (সোনাবাবা) হিসেবেই বেশি পরিচিত। সবসময় এক গাদা সোনার গহনা পরে ঘুরে বেড়ান বলে তার এরকম নামকরণ। সবমিলিয়ে সারা গায়ে ২০ কেজির মত সোনা পরে থাকেন এই সাধুবাবা। তার আসল নাম পুরী মহারাজা।

প্রতি বছরের মত এবারও হরিদ্বারে তীর্থযাত্রায় যাচ্ছেন শিষ্য পরিবেষ্টিত এই  সোনাবাবা। এই যাত্রাপথে অনেকের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হন এই সোনাবাবা। তিনি যেখানে যান সেখানেই তাকে দেখতে ভিড় জমায় কৌতুহলী জনতা। লোকজনের এই কৌতুহল ভালোই এনজয় করেন গোল্ডেন বাবা। এ নিয়ে তার ভাষ্য, ‘আমি সবসময় জনতার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকি। যেখানেই যাই লোকজন আমাকে দেখতে ভিড় জমায়। তাই আমার নিরাপত্তার জন্য পুলিশ মোতায়েন করতে হয়।’

সাধু হওয়ার আগে ব্যবসা করতেন রাজধানী দিল্লিতে। তিনি ছিলেন দিল্লির একজন চিহ্ণিত অপরাধী। পুলিশের ক্রিমিনাল রেকর্ডে তার নাম ছিল বিট্টু লাইট বাজ। পরে পুলিশি ঝুট ঝামেলা ও গ্রেপ্তার এড়াতে একদিন সন্ন্যাস নেন বিট্টু। একসময়ের চিহ্নিত অপরাধী  বিট্টু লাইট বাজ ‘গোল্ডেন বাবা’ হিসেবে খ্যাতি পান। গত ২৫ বছর ধরে কানওয়ার তীর্থযাত্রায় অংশ নিচ্ছেন তিনি।

তার গোটা শরীর সোনার অলঙ্কারে মোড়ানো। এমনকি তিনি যে লোটায় করে গঙ্গার জল বহন করেন সেটিও সোনার তৈরি। নিজের স্বর্ণপ্রীতি নিয়ে বাবা বলেন, ‘এক সময় আমি মাত্র কয়েক গ্রাম সোনা পরতাম। কিন্তু শিবের কৃপায় আমি এখন কয়েক কেজি সোনার অলঙ্কার পরতে পারছি।’ তিনি আরো দাবি করেন এত ভারি ওজনের অলঙ্কার কোনো সাধারণ মানুষের পক্ষে পরিধান করা সম্ভব নয়। ভগবানের আশীর্বাদপুষ্ট বলেই কেবল সোনাবাবার পক্ষে তা ধারণ করা সম্ভব হচ্ছে।

এবার আড়াইশ থেকে ৩শ শিষ্য নিয়ে তীর্থযাত্রায় রওয়ানা হয়েছেন সোনাবাবা। এসব শিষ্যদের থাকা  খাওয়া এমনকি চিকিৎসা খরচ বহন করছেন তিনি। এজন্য তার ব্যয় হয়েছে মোট সোয়া কোটি রুপি।

সূত্র: এনডিটিভি

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে