রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

দুনিয়াতে মানুষ যেভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করে

প্রকাশের সময়: ৬:৩০ পূর্বাহ্ণ - রবিবার | আগস্ট ১২, ২০১৮

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জনের পূর্বশর্ত হলো তাঁকে ভালোবাসা। আর তাকে ভালোবাসার বিষয়ে কুরআন সুন্নায় অনেক বর্ণনা এসেছে। যে ব্যক্তি আল্লাহ তাআলাকে ভালোবাসে আল্লাহ তাআলাও তাকে ভালোবাসে। হাদিসের বর্ণনায় আল্লাহর ভালোবাসার মাধ্যমেই মানুষ দুনিয়াতে জনপ্রিয়তা লাভ করে।

পক্ষান্তরে আল্লাহর অবাধ্য কাজ করলেই বান্দা তার বিরাগভাজন হয়ে যায়। সুতরাং যে বান্দার প্রতি আল্লাহ তাআলা ঘৃণা পোষণ করেন, এ ঘৃণার প্রভাবও কঠিন আকারে বিস্তৃতি লাভ করে। দুনিয়াতে সে হয় অপমানিত ও লাঞ্ছিত।

তাই সব সময় আল্লাহ তাআলাকে ভালোবাসার চেষ্টায় নিজেদের নিয়োজিত রাখা জরুরি। কুরআন ও সুন্নাহর ভিত্তিতে আল্লাহ তাআলাকে ভালোবাসার পাশাপাশি আল্লাহর ভালোবাসা লাভে তারই নির্দেশ মেনে চলা। আল্লাহ তাআলা কুরআনে পাকে ঘোষণা করেন-

‘(হে রাসুল!) আপনি বলুন, তোমরা যদি আল্লাহকে ভালোবাসতে চাও; তাহলে আমার (প্রিয়নবির) অনুসরণ কর। ফলে আল্লাহ তোমাদেরকে ভালোবাসবেন এবং তোমাদের অপরাধসমূহ ক্ষমা করবেন। মূলত আল্লাহ অত্যন্ত ক্ষমাশীল পরম দয়ালু।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ৩১)

আয়াতের ঘোষণা অনুযায়ী কারো মৌখিক দাবির মাধ্যমে আল্লাহর ভালোবাসা অর্জন সম্ভব নয়; বরং আল্লাহর ভালোবাসা পেতে হলে অবশ্যই প্রিয়নবি সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আনুগত্য করতে হবে। তবেই আল্লাহ তাআলা বান্দাকে ভালোবাসবেন।

আর আল্লাহ যে বান্দাকে ভালোবাসবেন সে সংবাদ তিনি ফেরেশতাদের মাধ্যমে সারা জাহানে জানিয়ে দেন। দুনিয়াতে তাকে জনপ্রিয় করে তোলেন। অতঃপর আল্লাহ তাআলা তার ভালোবাসা লাভকারীকে ক্ষমা করে দেন। যখন কোনো মানুষ আল্লাহর ভালোবাস লাভে ক্ষমা প্রাপ্ত হন; তখনই মানুষ আল্লাহর নৈকট্য লাভে সক্ষম হন।

আল্লাহর ভালোবাসায় মানুষ দুনিয়াতে জনপ্রিয়তা লাভ করে। প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে সে বর্ণনা দিয়েছেন এভাবে-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘আল্লাহ যখন কোনো ব্যক্তিকে ভালোবাসেন, তখন জিবরিলকে ডেকে বলেন, আমি অমুক ব্যক্তিকে ভালোবাসি, সুতরাং তুমিও তাকে ভালোবাস।

অতঃপর জিবরিল আলাইহিস সালাম তাকে ভালোবাসতে থাকেন। তারপর (জিবরিল) আকাশবাসীকে (ফেরেশতাদের) বলে দেন যে, আল্লাহ অমুক ব্যক্তিকে ভালোবাসেন। অতএব তোমরা তাকে ভালোবাস। তখন আকাশের সকল ফেরেশতা তাকে ভালোবাসতে থাকেন। অতঃপর সে ব্যক্তির জন্য জমিনেও জনপ্রিয়তা দান করা হয়।

আর আল্লাহ যখন কোনো বান্দাকে ঘৃণা করেন তখন জিবরিলকে ডেকে বলেন, আমি অমুক ব্যক্তিকে ঘৃণা করি, তুমিও তাকে ঘৃণা কর। তখন জিবরিলও তাকে ঘৃণা করেন। এরপর আকাশবাসীকে বলে দেন যে, আল্লাহ অমুক ব্যক্তিকে ঘৃণা করেন, তোমরাও তাকে ঘৃণা কর। তখন আকাশবাসীরা তাকে ঘৃণা করতে থাকে। অতঃপর তার জন্য জমিনেও মানুষের মনে ঘৃণা সৃষ্টি হয়।’ (মুসলিম, মিশকাত)

সর্বোপরি কথা হলো

মহান আল্লাহ তাআলাকে মানুষ কি পরিমাণ ভালোবাসে? যে আল্লাহ তাআলা মানুষকে কোনো কিছু চাওয়ার আগে অসংখ্য কল্যাণকর জিনিস দান করেছেন; যা আল্লাহ ব্যতিত দুনিয়ার কেউ তা কাউকে দান করতে পারে না।

তিনিই তো সে আল্লাহ যিনি মানুষকে সুনিপুন কারিগরি শৈলিতে সৃষ্টি করেছেন। মায়ের পেটে অন্ধকারের মধ্যে সুরক্ষিত রেখেছেন এবং সুন্দর আকার দান করেছেন।

বুঝার জন্য দিয়েছেন উন্নত মেমোরি তথা মস্তিষ্ক। পৃথিবীর সৌন্দর্য দেখতে দিয়েছে দু’টি চোখ। শোনার জন্য দিয়েছেন দু’টি কান। কথা বলার জন্য দিয়েছেন জবান। খাওয়ার জন্য দিয়েছেন দাঁত। স্বাদ গ্রহণের জন্য দিয়েছেন অটোমেটিক মেশিন জিহ্বা। নিশ্বাস গ্রহণের জন্য দিয়েছেন অতন্দ্র প্রহরী নাক।

চলাচলের জন্য দিয়েছেন সচল মেশিন দু’টি পা। আর অনবরত হালাল রিজিক লাভে দিয়েছেন দু’টি হাত। অবশেষে মানুষকে করেছেন সৃষ্টির সেরা জীব আশরাফুল মাখলুকাত মানুষ। এ সবাই বান্দাকে মহান আল্লাহ তাআলার ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ।

যারা এ সব নেয়ামত লাভের পরও মহান আল্লাহকে ভালোবাসতে পারেনি তাদের জন্য রয়েছে অশুভ পরিণতি। আল্লাহ তাআলা সে কথাও কুরআনে পাকে ঘোষণা করেছেন-

‘আর আমি তো বহু জ্বিন ও মানুষকে জাহান্নামের জন্য সৃষ্টি করেছি; যাদের কলব বা অন্তর আছে কিন্তু তা দিয়ে তারা উপলব্ধি করে না; তাদের চোখ আছে কিন্তু তা দিয়ে তারা দেখে না; তাদের কান আছে; এ কান দিয়ে তারা শোনে না। এরা চার পা বিশিষ্ট জন্তুর মতো; বরং তার চেয়েও নিকৃষ্ট বিভ্রান্ত। তারাই হলো উদাসিন।’ (সুরা আরাফ : আয়াত ১৭৯)

সুতরাং মানুষের উচিত, আল্লাহ তাআলার দান করা জ্ঞান ও শারীরিক অঙ্গ দ্বারা নিজেদেরকে নিয়ে চিন্তা গবেষণা করার মাধ্যমে মহান আল্লাহর কুদরত ও নেয়ামতের শুকরিয়া আদায় করা। আল্লাহ তাআলার বিধানের প্রতি গুরুত্বারোপ করে তার ভালোবাসা লাভ করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আল্লাহ ও তার রাসুলের বিধি-বিধানের প্রতি গুরুত্বারোপ করে তাদের ভালোবাসা লাভের তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও আখেরাতে নিজেদেরকে আল্লাহ এবং তার রাসুলের জনপ্রিয় হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

উপরে