মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই, ২০১৯ | ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

এক চুমুতেই সব সমস্যার সমাধান

প্রকাশের সময়: ১১:০২ অপরাহ্ণ - শনিবার | আগস্ট ২৫, ২০১৮

 

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

স্বামী পরকীয়ায় আসক্ত হোক বা মাদকে। সন্তান হচ্ছে না কিংবা সংসারে অশান্তি। যৌন সমস্যা থেকে শারীরিক অসুস্থতা। এক চুমুতেই সব সমস্যার সমাধান। নাম ‘চমৎকারী চুম্বন’। সে চুম্বনের এমনই অলৌকিক মহিমা যে, সব সমস্যা নিমেষে দূর হয়ে যায়।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, এমনই এক বুজরুকির (বাজে) ব্যবসা ফেঁদে বসেছিলেন স্বঘোষিত ‘চুমু বাবা’। আসামের এক প্রত্যন্ত গ্রামে। আর ভক্তরাও ছিল শুধুই নারীরা। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। কোনও অলৌকিক ক্ষমতাই ‘চুমু বাবা’ ওরফে রামপ্রকাশ চৌহানের গ্রেফতারি আটকাতে পারল না। শেষ পর্যন্ত ঠিকানা শ্রীঘর। সঙ্গী তার মা-ও। অভিযোগ, তিনি গুণধর ছেলের অলৌকিক ক্ষমতার কথা প্রচার করতেন।

রামপ্রকাশ চৌহান আসামের মরিগাঁও জেলার ভোরালটুপ গ্রামের বাসিন্দা। গ্রামে গ্রামে বার্তা রটেছিল, এই রামপ্রকাশই অলৌকিক ক্ষমতাধারী। নাম ‘চুমু বাবা’। যে কোনও সমস্যা নিয়ে তার কাছে গেলে তিনি জড়িয়ে ধরে চুমু দিয়ে দিতেন। তবে শর্ত একটাই, সমস্যা নিয়ে বছর তিরিশের ওই বাবার কাছে নারীদেরই যেতে হবে।

ক্রমে ক্রমে সে বার্তা রটে গেল গ্রামে। বাবার ‘মাহাত্ম্য’ ও ‘মহিমা’ ছড়াতে লাগল দূর দূরান্তে। বাড়ির সামনেই গড়ে তোলা হল ‘চুমু বাবা’র মন্দির। খবর গেল ভারতের স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলেও। ফলাও করে টিভি চ্যানেলে দেখানো হল, এক এক করে নারীরা আসছেন। আর বাবা জড়িয়ে ধরে তাদের চুমু দিচ্ছেন।

কিন্তু সেটাই কাল হল চুমু বাবার। ওই টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে খবর গেল পুলিশে। আর তারপরেই অভিযান। হাতেনাতে গ্রেফতার ‘চুমু বাবা’। আর ছেলের ‘মাহাত্ম্য’ প্রচার এবং ‘কুকীর্তি’তে সাহায্য করার অভিযোগে গ্রেফতার তার মা-ও।

দেশটির মরিগাঁওয়ের পুলিশ অফিসার জে বরা জানান, ‘অভিযুক্ত রামপ্রকাশ চৌহানের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, নানা সমস্যা দূর করার নামে নারীদের জড়িয়ে ধরা ও চুমু খাওয়ার মাধ্যমে যৌন শোষণ করছিলেন। সে কারণেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উপরে