শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯ | ৮ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

বৃহস্পতিবারের জ্যামিংটা ছিল বড্ড ‘রিদমলেস’, অতঃপর চলে যাওয়া অভিমানি এবি’র

প্রকাশের সময়: ৫:৪০ অপরাহ্ণ - বৃহস্পতিবার | অক্টোবর ১৮, ২০১৮

(সংগৃহীত ছবি)

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি :

 

জিয়াউদ্দিন খন্দকার: হঠাৎ করেই ছন্দপতন হলো কিংবদন্তী ব্যান্ড সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর হৃদস্পন্দনের! যেন সাথে সাথে সব থেমে গেল! ছন্দময় মিউজিকেই যার একচ্ছত্র প্রভাব ও বিচরণ সেই এবি’র হৃদয়টাই হঠাৎ করেই মিস করল ‘রিদম’। ‘রিদম’ ছাড়া কি আর সুর প্রাণোবন্ত হয়? না, তা হতেই পারেনা। আর আরও একবার তারই প্রমাণ দিলেন এবি। হৃদস্পন্দনের ‘রিদম মিস’ করায় অগনিত ভক্তের অতি পরিচিত এই নামটি হঠাৎ করেই প্রাণশূন্য হয়ে গেল। দেহটা শুুধু রেখে গেল “সাড়ে তিন হাত মাটি” কে ঠিকানা করে। বৃহস্পতিবারের জ্যামিংটা বড্ড ‘রিদমলেস’ হওয়ায় যেন অভিমানি মনে চলে গেলেন এবি।

বৃহস্পতিবার এভাবেই চলে গেলেন ব্যান্ড লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু। আজ সকাল ১০টা নাগাদ রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে পৌছানোর ঠিক আগ মুহুর্তে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এই জগৎ বিখ্যাত তারকা। যার অকস্মাৎ মৃত্যুতে নিবার্ক হয়ে গেছেন অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগী ও সহকর্মীরা।

স্কয়ার হাসপাতা‌লের সা‌র্ভিস বিভা‌গের প‌রিচাল ড. মির্জা না‌জিমু‌দ্দিন জানিয়েছেন, আইয়ুব বাচ্চুর হার্ট অ্যাটাক হয়েছে সাড়ে ৮টার নাগাদ। উনি হার্টের রোগী। তার হার্টের রিদমটা কমে গিয়েছিলো শেষদিকে। সেই রিদম হঠাৎ একেবারেই বন্ধ হয়ে গেলে আজ সকালে মারা যান তিনি ।

তিনি আরও বলেন, ‌মৃত অবস্থাতেই তাঁকে তার ড্রাইভার হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় ৯টা ১৫ মিনিটে। পরে ডাক্তাররা তাকে ৯টা ৫৫ মিনিটে মৃত ঘোষণা করেন -খবর jagonews24 এর।

সকালে অজ্ঞান অবস্থায় স্কয়ার হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয় আইয়ুব বাচ্চুকে। এ সময় জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা কৃত্রিমভাবে কার্ডিও পালমোনারি রিসাসিটেশন বা সিপিআর এর মাধ্যমে হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুসের স্বাভাবিক কার্যকলাপ ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন।

এর আগেও ২০১২ সালে তিনি দীর্ঘদিন হাসাপাতালে ভর্তি ছিলেন।

আইয়ুব বাচ্চু একাধারে একজন গায়ক, লিডগিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার ও প্লেব্যাক শিল্পী ছিলেন।

১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রাম শহরে জন্মগ্রহণ করেন জনপ্রিয় এই ব্যাক্তিত্ব। সংগীত জীবনের দীর্ঘ চার দশকে অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গান তিনি উপহার দিয়েছেন। ১৯৭৮ সালে ‘ফিলিংস’ ব্যান্ডের মাধ্যমে সংগীতজগতে প্রবেশ করেন আইয়ুব বাচ্চু। শ্রোতা-ভক্তদের কাছে এবি নামেই পরিচিত তিনি। মূলত রক ঘরানার কণ্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান ও লোকগীতি দিয়ে শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন তিনি।

১৯৯১ সালে তার নেতৃত্বে জন্ম নেয় ‘এলআরবি’ ব্যান্ড। দলটির লিড গিটারিস্ট ও ভোকালও তিনি। এর আগে তিনি প্রায় দশ বছর সোলস ব্যান্ডের সঙ্গে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন।

 

উপরে