বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯ | ১২ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

ছাত্রজীবনে বিটিভির বিতর্ক প্রতিযোগীতায় শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরা দীপু আজ শিক্ষামন্ত্রী (ভিডিওতে দেখুন)

প্রকাশের সময়: ১২:০৭ অপরাহ্ণ - শুক্রবার | জানুয়ারি ১১, ২০১৯

 

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

বাংলাদেশে গর্বের এক নাম ডা. দীপু মনি। যিনি বাংলাদেশের প্রথম নারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রথম নারী শিক্ষামন্ত্রী। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত আছেন। অতী সম্প্রতি আমরা ডাঃ দীপু মণির ছাত্রজীবনের একটি ভিডিও ক্লিপ পেয়েছি যাতে দেখা যায় যে, দীপু মণি ১৯৮৭ সালে বিটিভির বিতর্ক প্রতিযোগীতায় অত্যন্ত মেধার চিহ্ন রেখেছেন। শুধু উপস্থিত বুদ্ধিই নয় বরং একই সাথে প্রচন্ড দুরদর্শীতার প্রমাণও দিয়েছিলেন তিনি। সেই আমলেই তিনি শিক্ষাকে সমাজ পরিবর্তনের একমাত্র হাতিয়ার হিসেবে সকলের নিকট তুলে ধরেছিলেন। ভাগ্যচক্রে আজ তিনিই আমাদের দেশের শিক্ষামন্ত্রী। অনেক অনেক সফলতা আসুক মেধাবী এই প্রজ্ঞাময়ীর হাত ধরে এমন শুভকামণায় অপেক্ষমান আমরা। চলুন দেখে নেই ভিডিওটি যাতে শিক্ষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি।

 

এক নজরে ডা. দীপু মনি

গণতন্ত্র ও বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ঘনিষ্ঠ সঙ্গী এবং আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাকালীন সদস্য মরহুম এম. এ. ওয়াদুদের কন্যা হলেন দীপু মনি। মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের আগে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক এবং পররাষ্ট্র বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ছিলেন।

অসম্ভব মেধাবী দীপু মনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রী লাভের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স ইউনির্ভাসিটির স্কুল অব পাবলিক হেলথ থেকে এমপিএইচ ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে আইন বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রীও অর্জন করেন এবং বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের একজন আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে যোগদানের আগ পর্যন্ত ডা. দীপু মনি মানবাধিকার, নারী অধিকার, স্বাস্থ্য আইন, স্বাস্থ্য নীতি ও ব্যবস্থাপনা, স্বাস্থ্য অর্থায়ন, কৌশলগত পরিকল্পনা এবং আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পররাষ্ট্রনীতি সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে কাজ করছিলেন।

দীপু মনি একাধারে লেখালেখি, শিক্ষকতা, পরামর্শদাতা, গবেষণা, এ্যাডভোকেসি কর্মসূচি পরিচালনা করেন এবং দক্ষ ও অভিজ্ঞ চিকিৎসকদল নিয়ে গঠিত ফ্রি স্বাস্থ্যসেবা ক্লিনিকের মাধ্যমে দুঃস্থ ও স্বাস্থ্যসুবিধা বঞ্চিত মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার কাজ করেন। তিনি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে আইন প্রণয়নে জনমত গড়ে তোলার কাজেও নিয়োজিত।

প্রতিনিধিত্বমূলক রাজনীতি ও রাজনৈতিক নীতি নির্ধারণী প্রক্রিয়ায় নারীর অংশগ্রহণের ব্যাপারে তিনি একজন একনিষ্ট প্রবক্তা। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনস্টিটিউটের ঘনিষ্ঠ সহায়তায় তিনি আওয়ামী লীগের নারী কর্মীদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন।

অক্সব্রীজ শিক্ষায় শিক্ষিত বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের দু’জন সিনিয়র আইনজীবীর অন্যতম জনাব তৌফীক নাওয়াজ ডা. দীপু মনির স্বামী। তাঁদের রয়েছে দু’টি সন্তান; পুত্র তওকীর রাশাদ নাওয়াজ ও কন্যা তানি দীপাভলী নাওয়াজ।

উপরে