রবিবার, ২১ জুলাই, ২০১৯ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

শেরপুরের ঝিনাইগাতী বাজারে সামান্য বৃষ্টিতেই হাটু পানি জন দূর্ভোগ চরমে

প্রকাশের সময়: ৬:৩৭ অপরাহ্ণ - সোমবার | জুলাই ৮, ২০১৯

ফাইল ছবি

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

গোলাম রব্বানী-টিটু,(শেরপুর)সংবাদদাতা ঃ শেরপুরের ঝিনাইগাতী সর্বোচ্চ রাজস্ব্য আয়ের বাজারটিতে সামান্য বৃষ্টিতে জমে থাকে হাটু পানি। পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় এ সময়ে বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতাদের অসহনীয় দূর্ভোগের শিকার হতে হয়। এমন পরিস্থিতি দেখে মনে হয়, উক্ত বাজারটির এ বেহাল দশা, দেখার যেন কেউ নেই! বিশাল রাজস্ব্য আয়ের এ বাজারটির এহেন দূরবস্থার বিষয় গুলো ভূক্ত-ভোগী ব্যক্তিরা দিনের পর দিন বছরের পর বছর দূর্ভোগ পোহাচ্ছে । সোমবার থানা রোড মসজিদ রোড সহ সমস্ত বাজারে চলফেরার অযোগ্য হয়ে পড়েছে সামান্য বৃষ্টিতেই ।

এমন কি মসজিদে অনেকেই নামাজ পড়তে যেতে পারে নাই পানি ও কাঁদার জন্যে । উল্লেখ্য, এ বাজার থেকে প্রতি বছরে প্রায় কোটি টাকার উর্ধ্বে রাজস্ব্য আয় আসে। অথচ বাজার উন্নয়নে তেমন কোন পদক্ষেপ নেই। প্রকাশ থাকে যে, সরকারী নিয়ম অনুযায়ী বাজারের ডাককৃত অর্থের সিংহভাগ টাকা বাজার উন্নয়ন খাতে ব্যয় করার নিয়ম থাকলেও তা এক্ষেত্রে মানা হচ্ছেনা। বর্তমানে ঝিনাইগাতী বাজার ও পার্শ্ববর্তী এলাকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতায় পানি বাহিত রোগ সহ নানান রোগে আক্রান্ত হয়ে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ জনতা।

এ ছাড়াও এ বিশাল বাজারটিতে দূর-দুরান্ত থেকে আগত হাজার হাজার ক্রেতা-বিক্রেতাদের পানীয় জলের কোন ব্যবস্থা নেই এমনকি পাবলিক টয়লেটের ব্যবস্থাও না থাকার সামিল। কারণ এ বিশাল বাজারের জন্য একটি পাবলিক টয়লেট প্রয়োজনের তুলনায় কিছুইনা। এ সমস্ত সমস্যা দীর্ঘদিন থেকে বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতারা ভোগ করে আসছে। শুধু তাই নয়, বাজারের এ নোংরা পরিবেশের কারনে নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে অনেকেই। এ সংক্রান্ত বিষয়ে বার বার বলার পরেও কোন প্রতিকার পাইনি ভ’ক্তভোগীরা। এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাথে কথা হলে তিনি জানান, অতি সত্বর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং বাজারের সমস্যা সমাধানের জন্য দ্রæত ব্যবস্থা নিচ্ছেন বলে তিনি জানান ।

 

উপরে