বুধবার, ২১ আগস্ট, ২০১৯ | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

ফেইসবুক যখন নিয়ন্ত্রণহীন, গুজবের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার

প্রকাশের সময়: ৯:৪৯ অপরাহ্ণ - শুক্রবার | জুলাই ২৬, ২০১৯

কারেন্টনিউজ ডটকম ডটবিডি

বিশ্বজুড়ে ফেইসবুকের রাজত্ব আজকাল ব্যপকতা লাভ করেছে ইন্টারনেটের কল্যানে, যার সুফল সন্দেহাতীত ভাবে উল্লেখযোগ্য। পাশাপাশি অবাধ ও অনেকটাই নিয়ন্ত্রিণহীন কার্যক্রমের কারণে ফেইসবুকের কুফলটাও সাধারণের মানুষের চরম ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে যা জাতীয় নিরাপত্তার জন্য এক বিরাট হুমকি তথা অসনী সংকেত। সাম্প্রতিক কালে ‘ছেলেধরা’ ইস্যুতে গণপিটুনীর মত বর্বরতায় তারই নমুনা দেখছে বাংলাদেশের মানুষ। তবে কি গুজবের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার এই ফেইসবুক সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণহীন? অথচ মাসে প্রায় ৫০০ কোটি ডলারের বেশি আয় করে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় এই মাধ্যমটি।

আমাদের দেশে গুজবের ধারাবাহিকতায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে ‘তিন দিন কারেন্ট না থাকা’র মত একটি মিথ্যা খবর! এর আগে নিরাপদ সড়কের আন্দেলনের সময় ঢালাও ভাবে প্রচার করা হয়েছিল ক্ষমতাসীন দলের সভানেত্রীর অফিসে নাকি মেয়েদের ধর্ষন করে লাশ গুম করা হয়েছে -এমন এক গুজব। কতটা ভয়াবহ উন্মাদনা যে সৃষ্টি করতে পারে এই গুজবসমূহ তার জলন্ত দৃষ্টান্ত এখন আমাদের চোখের সামনেই। গণপিটুনীর নামে রেনু হত্যাকান্ডের ঘটনায় ইতোমধ্যেই প্রশ্নবিদ্ধ গোটা জাতির বিবেক। আর কত গুজবের মধ্য দিয়ে যে আমাদের যেতে হবে  সেটাই এখন চিন্তার বিষয়। ফেইসবুকের নিয়ন্ত্রণ যথাযথভাবে না হলে বিপদ যে আরও বৃদ্ধি পাবে তা একপ্রকার নিশ্চিত করেই বলা চলে।

এটা তো স্পষ্ট যে সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা অনলাইন সাইটের মধ্যে ফেইসবুকে গুজব চর্চার ব্যপকতা সবচেয়ে বেশি। তাহলে কি একেবারেই নিয়ন্ত্রনহীন এই ফেইসবুক? অতিসম্প্রতি ফেইসবুককে ৫০০ কোটি ডলারের জরিমানা গুনতে হয়েছে অনিয়মজনিত কারণে। অথচ আমাদের দেশে এই ফেইসবুকের কল্যানেই কিন্তু তাৎক্ষণিক সম্পন্ন হয়েছে অনেক ন্যায় বিচার যার মধ্যে এখনও বেশ কিছু প্রক্রিয়াধীন। রিফাত কিংবা নুসরাত হত্যাকান্ডের মতো ঘটনাগুলোর প্রেক্ষিতে দ্রুত বিচারকার্যের যে গণদাবিতে সোচ্চার হয়েছিল সারাদেশ তার নেপথ্যে কিন্তু ফেইসবুকের ভূমিকাটাই ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ।

বিশেষজ্ঞদের মতে ফেইসবুকের সঠিক নিয়ন্ত্রণ অবশ্যই সম্ভব, তবে এর জন্য ফেইসবুক কর্তৃপক্ষের সাথে প্রত্যেকটি দেশের সরকারকেও যথেষ্ট আন্তরীক হতে হবে। গুরুত্বসহকারে এই বিষয়ে কার্যক্রম চলমান রাখতে হবে যেহেতু প্রযুক্তি নির্ভর এই ক্ষেত্রগুলো সর্বদা আপডেট হতেই থাকে। সপ্তাহ তিনেক আগে আমাদের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলে রাতের টকশোতে জানিয়েছিলেন খুব শিঘ্রই নাকি ফেইসবুকের একটি অংশের নিয়ন্ত্রন নেওয়ার চেষ্টা করছে সরকার এবং এবিষয়ে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করা হচ্ছে। নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের মতে প্রক্রিয়াটি অতি দ্রুত সম্পন্ন করা সরকারের জন্য অত্যাবশ্যক হয়ে দাড়িয়েছে। এক্ষেত্রে কোন প্রকারের কালক্ষেপন করা হলে তা সামগ্রিকভাবে জাতির জন্য বিরাট কোন ক্ষতির কারণ হতে পারে যা হয়তো অপূরনীয়। সুতরাং বিষয়টিতে সর্বোচ্চ আমল দিয়ে এর সমাধানে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের কোন বিকল্প নেই।

তৃতীয় মাত্রা

উপরে