রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

ডিএমপিসহ সারা দেশে পুলিশকে মাঠে নামার নির্দেশ

প্রকাশের সময়: ৭:৫৯ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | নভেম্বর ১৯, ২০১৯

currentnews

লবণের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে যেন কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য ঢাকা মহানগর পুলিশসহ (ডিএমপি) সারা দেশের পুলিশ সদস্যদের মাঠে নামার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দোকানে দোকানে গিয়ে তল্লাশি চালানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়ানোর পরই মঙ্গলবার পুলিশ সদর দফতর ও ডিএমপি থেকে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

ডিএমপির সব পুলিশ সদস্যদের ওয়ারলেসে নির্দেশ দেন অতিরিক্ত কমিশনার (অপারেশন) মনিরুল ইসলাম।

নির্দেশনা পেয়ে ইতিমধ্যেই পুলিশ সদস্যরা মাঠে নেমে বিভিন্ন দোকানে গিয়ে খোঁজখবর নিতে শুরু করেছেন।
এদিকে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে রাজধানীর ধানমণ্ডি ও হাজারীবাগে অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে আটক করার খবর পাওয়া গেলেও ধানমণ্ডি থানায় ফোন করলে বিষয়টি অস্বীকার করে পুলিশ। তবে লবণ ইস্যুতে অভিযানের ফলাফলের বিষয়ে পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানিয়ে দেয়া হবে বলে ডিএমপি থেকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার সাহা বলেন, লবণ নিয়ে যাতে কোনো বিশৃঙ্খলা না হয় সেজন্য পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা রয়েছে। কেউ অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি করছে কিনা- সে বিষয়ে নজরদারি করছি।

এদিকে মঙ্গলবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পেঁয়াজের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, দেশে লবণের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে, কিন্তু অপপ্রচার চালিয়ে অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিচ্ছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এর আগে শিল্প মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, দেশে লবণের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। দেশে বর্তমানে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টনেরও বেশি ভোজ্য লবণ মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের লবণ চাষিদের কাছে ৪ লাখ ৫ হাজার মেট্রিক টন এবং বিভিন্ন লবণ মিলের গুদামে ২ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন লবণ মজুদ রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, একটি স্বার্থান্বেষী মহল লবণের সংকটের গুজব ছড়িয়ে অধিক মুনাফা লাভের আশায় লবণের দাম অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এ ধরনের গুজবে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

প্রসঙ্গত, লবণ সংকটের গুজব ছড়িয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে হঠাৎ করে দাম বেড়ে যায়। কোথাও কোথাও একশ’ টাকা কেজি দরে লবণ বিক্রি হচ্ছে।

উপরে