রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

৫জি শিগগিরই বাস্তবে রূপান্তর হবে: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশের সময়: ৯:৪৮ অপরাহ্ণ - শনিবার | জানুয়ারি ১৮, ২০২০

currentnews

ডিজিটাল ধারণা প্রধানমন্ত্রী ও সজীব ওয়াজেদ জয়ের নিকট থেকে আসছে। এটা সারাদেশে প্রোগ্রেসিভলি এগিয়ে যাচ্ছে। ৫জি শিগগরিই বাস্তবে রূপান্তর হবে। এটা আর স্বপ্ন নয়।

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) নগরীর শেরে বাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা-২০২০ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রযুক্তির মহাসড়কের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এসব কথা বলেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশের সম্ভাবনা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী বলেন, বছরে সারাবিশ্বে পোশাকশিল্পের বাজার ৯০০ বিলিয়ন ডলার। আইসিটি খাতের বার্ষিক চাহিদা ৪ ট্রিলিয়ন ডলার। আমরা এ খাতে ১ বিলিয়ন ডলার থেকে ৩৪ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছে গেছি। পোশাক শিল্পের মতোই আমরা আইসিটি খাতে সক্ষমতা দেখাবো। আমাদের সুন্দর মন মানসিকতা রয়েছে। এই সেক্টরে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস দেশের যুবসমাজব পরাজিত হবে না।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে বাংলাদেশের উপস্থিতি থাকবে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রথম শিল্প বিপ্লব ইংল্যান্ডে শুরু হয়। প্রথম শিল্প বিপ্লব আমরা ফেইল করেছি। দ্বিতীয় শিল্প বিপ্লবেও আমরা অংশগ্রহণ করতে পারি নাই। তৃতীয় শিল্প বিপ্লব চলমান। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অংশ গ্রহণ করছি আমরা। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব নলেজ বেইজড। সব কিছুই পরিবর্তন আসবে টেকনোলজির মাধ্যমে। একাধিকভাবে অনেক টেকনোলজি ব্যবহার করতে হবে। আমরা শিক্ষা গ্রহণ করবো এবং বাস্তবায়ন করবো। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব আমরা আর মিস করবো না।

‘আমার যুব সমাজ সব কিছুর জন্য প্রস্তুত। আমি আবারও বলবো, আমি স্বপ্ন দেখি। যেমনইভাবে সজীব ওয়াজেদ জয় তরুণ সমাজকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন, যেমনইভাবে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন।’

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেন, পৃথিবীতে ডিজিটাল শব্দটিকে বিপ্লবে রূপ দিয়েছে বাংলোদেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার ১১ বছর পরে আমরা একটা মূল্যায়ন করেছি। আমরা ডিজিটাল খাতে অনেক এগিয়েছি। আমরা দেশেই উৎপাদনের মাধ্যমে কম্পিউটার ও মোবাইলের চাহিদা পূরণ করছি। আমরা সব সূচকেই এগিয়ে যাচ্ছি।

সমাপনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. নূর উর রহমান।

 

 

উপরে