বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০ | ১লা শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

কারফিউ উপেক্ষা করেই যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ

প্রকাশের সময়: ৮:০১ অপরাহ্ণ - মঙ্গলবার | জুন ২, ২০২০

currentnews

যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের নিপীড়নে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর প্রতিবাদে বিশ্বজুড়ে কয়েকদিন ধরে চলছে প্রতিবাদ। কারফিউ উপেক্ষা করেই যুক্তরাষ্ট্রে সপ্তম দিনের মতো চলছে বিক্ষোভ-সংঘর্ষ। এ পর্যন্ত সাড়ে ৫ হাজারের বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী । নিহত হয়েছেন দুই জন। পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কারফিউয়ের মেয়াদ বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ২৩ রাজ্যে সহিংসতা দমাতে কাজ করছে ন্যাশনাল গার্ডের কয়েক হাজার সদস্য।

১৯৯২ সালের পর সবচেয়ে ভয়াবহ দাঙ্গার মুখে পড়েছে লস অ্যাঞ্জেলেস। কেবল মেলরোজ এভিনিউয়ের ৮৮ দোকানপাট ধ্বংস হয়ে গেছে। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে বাসিন্দাদের বাড়ির বাইরে না বের হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মেয়র।

২১ রাজ্যে বলবৎ রয়েছে কারফিউ। মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত কারফিউয়ের মেয়াদ বাড়িয়েছে নিউইয়র্ক। তৃতীয় দিনের মতো কারফিউ চলছে আটলান্টা ও ফিলাডেলফিয়ায়। সহিংসতা বন্ধে দেশের ২৬ রাজ্যে মোতায়েন রয়েছে ন্যাশনাল গার্ডের কয়েক হাজার সদস্য। বাড়তি সদস্য মোতায়েন হচ্ছে ওয়াশিংটন ডিসি, নিউজার্সি, নিউইয়র্ক, ওহাইয়ো, উটাহ, ইন্ডিয়ানায়।

জর্জ ফ্লয়েড হত্যার প্রতিবাদে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় হোয়াইট হাউজ। চলে লাগাতার বিক্ষোভ, টিয়ার শেল নিক্ষেপ। বিক্ষোভ, সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে অন্যসব গুরুত্বপূর্ণ শহরেও। মিনিয়াপলিস, ওয়াশিংটন ডিসি ও নিউইয়র্কে চলছে কারফিউ। ওয়াশিংটন ডিসিতে কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ চলার সময় সামরিক হেলকিপ্টার টহল দিতে দেখা গেছে।

এদিকে, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুকে হত্যা হিসেবে উল্লেখ করেছে কর্তৃপক্ষ। ময়না প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ফ্লয়েডের পরিবারের আইনজীবীর দাবি, কেবল ডেরেক নয় অন্য পুলিশ সদস্যরাও তার মৃত্যুর জন্য দায়ী। ফ্লয়েড হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ডেরেক চাউভিনকে ৮ জুন তোলা হবে আদালতে। তবে বিক্ষোভকারীদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন ফ্লয়েডের ভাই।

যুক্তরাষ্ট্রের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে, বিক্ষোভ চলছে যুক্তরাজ্য, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে। লন্ডনে বিক্ষোভের সময় পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষ হয় ।

নিজ দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে এসব সহিংসতায় উদ্বেগ জানিয়ে তা বন্ধে যুক্তরাষ্টের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইরান ও চীন।

উপরে