বুধবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২১ | ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Logo
Print

ভাঙ্গুড়ায় পুত্রবধু স্বীকৃতির দাবিতে কলেজ ছাত্রীর দু’দিন শ্বশুরবাড়ি অবস্থান, স্বামী-শ্বশুর আটক

প্রকাশের সময়: ৮:৪০ অপরাহ্ণ - বুধবার | নভেম্বর ২৫, ২০২০

currentnews

প্রভাষক গিয়াস উদ্দিন, ভাঙ্গুড়া(পাবনা)প্রতিনিধি : পাবনার ভাঙ্গুড়ায় মেহরিন সুলতানা (২০) নামে এক কলেজ ছাত্রী নিজেকে পুত্রবধু স্বীকৃতির দাবিতে শ্বশুরবাড়ি দু’দিন টানা অবস্থানের পর আজ বুধবার সন্ধ্যায় তার স্বামী খাইরুল ইসলাম ও শ্বশুর আকবর আলীকে আটক করেছে থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মন্ডতোষ ইউনিয়নের দিয়ারপাড়া গ্রামে। মেহরিন সুলতানা উপজেলার নৌবাড়িয়া গ্রামের রবিউল ইসলামের মেয়ে এবং সরকারি হাজী জামাল উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের ছাত্রী। সম্প্রতি মেহরিন ও খাইরুল কোর্ট ম্যারেজ করে কিন্তু স্বামী তার বাড়িতে না নেওয়ায় মেহরিন নিজের স্বীকৃতির দাবিতে মঙ্গলবার শ্বশুরবাড়ি অবস্থান নেয়। এমনকি স্বীকৃতি না পেলে সে আত্মহত্যারও হুমকি দেয়। এরপরও তাকে মেনে না নেওয়ায় অবশেষে মেহরিন আজ বুধবার ভাঙ্গুড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রুজু করে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায় ,সম্প্রতি উপজেলার দিয়াপাড়া গ্রামের আকবর আলীর ছেলে খাইরুল ইসলাম(২২) কে মেহরিন বিয়ে করে। কিন্তু স্ত্রী হিসাবে স্বীকৃতি না পেয়ে মঙ্গলবার সে বিয়ের কাবিন ও কোর্টের এফিডেভিটের কাগজপত্র নিয়ে শ্বশুর বাড়ি হাজির হয়। তখন শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাকে চর-থাপ্প্র মারে এবং ঘার ধরে ঘর থেকে বের করে দেয়। তারপরও মেয়েটি ঐ বাড়ির উঠানে বসে থাকে। এভাবেই অনাহারে একটি শীতের রাত ও বুধবার সারাদিন পার করে সে।
মেহরিন সুলতানা জানায়,এক বছর আগে খাইরুলের সাথে তার প্রেম পর্যায়ক্রমে শারীরিক সম্পর্কে রুপ নেয়। ফলে মেহরিন গর্ভধারণ করে। তখন খাইরুল শর্ত দেয় যে গর্ভপাত না করলে সে তাকে বিয়ে করবে না। পরে ওষুধ খাইয়ে তার গর্ভপাত করানো হয়।
ভাঙ্গুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মেহরিনের স্বামী খাইরুল ইসলাম ও তার বাবা আকবর আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উপরে